বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১১:৩২ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
ফাইজার ও অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩টি ডোজ দিলে করোনা মোকাবেলায় আরও বেশি কার্যকর বঙ্গোপসাগরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে ভাসতে থাকা ১৪ জেলেকে জীবিত উদ্ধার অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে লকডাউন বাড়ল আরও ১ মাস ভারতে ঘুমন্ত অবস্থায় ট্রাকের ধাক্কায় মারা গেলো ১৮ জন অভিবাসী শ্রমিক আগামী রোববার ও বুধবার ব্যাংক বন্ধ থাকবে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ২৪ নির্মাণাধীন ভবন ও বাসাবাড়িকে ৩ লাখ ৩১ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা বিএনপি’র আমলেই শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস-নৈরাজ্য ছিল :ড. হাছান মাহমুদ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়াভাই’ সিনেমা প্রদর্শনের নির্দেশ বিজ্ঞাপনে তাসনুভা শিশির  দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন ২৩৭ জন

করোনায় এক মানবিক যোদ্ধা ইউএনও নাহিদা আক্তার

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২০ জুলাই, ২০২১, ২.১৭ পিএম
  • ২০ বার পঠিত

প্রতিবেদক,আল সামাদ রুবেলঃ বিধাতার অজস্র সুন্দর সৃষ্টির মাঝে নারী হচ্ছে এক অনুন্য সাধারন অপরূপ সৃষ্টি জন্ম থেকে মৃত্যু অবধি একজন নারী অজস্র ভূমিকা পালন করে থাকেন। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের নারী কবিতায় এই মহান বানী দুটি প্রতিটি মানুষের কাছেই অনুপ্রেরণার উৎস।শুধু তাই নয়,পুরুষদের কাছে স্পৃহা বা উদ্দীপনা বাড়ায় সেও কিন্তু নারী।তাইতো কবির ভাষায়, বিশ্বে যা কিছু সৃষ্টি চির কল্যানকর,অর্ধেক তার করিয়াছে নারী,অর্ধেক তার নর।তাই তেমনি একজন সফল নারী রাঙ্গামাটি পার্বত্য জেলার কাপ্তাই উপজেলার (অব:) সরকারী কর্মকর্তা পিতার মেয়ে দাগনভূইয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা আক্তার ।

৩৩তম বিসিএস উত্তীর্ণ হয়ে ২০১৪ সালের ৭ আগষ্ট রাজশাহী বিভাগীয় কমিশনার অফিসে সহকারী কমিশনার হিসেবে যোগদান করেন। পরবর্তীতে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়, বগুড়ায় সহকারী কমিশনার হিসেবে ১০ আগষ্ট ২০১৪ হতে ২০১৫ সালের ১০ এপ্রিল পর্যন্ত প্রতিটি কর্মস্থলে সুনামের সহিত দায়িত্ব পালন করেছেন। ২০১৫ সালের ১৬ এপ্রিল থেকে ২০১৭ সালের ২৮ নভেম্বর পর্যন্ত বান্দরবান জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে সহকারী কমিশনার, ২০১৭ সালের ২৯ নভেম্বর থেকে ২০১৯ সালের ৩০ আগষ্ট পর্যন্ত বিভাগীয় কমিশনার অফিস, চট্টগ্রাম-এ সহকারী কমিশনার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

২০১৯ সালের ৪ অক্টোবর থেকে ২০২০ সালের ১৪ আগষ্ট পর্যন্ত সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে ছাগলনাইয়া উপজেলায় দায়িত্ব পালন করেন। ২০২০ সালের ১৬ অক্টোবর হতে ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০ পর্যন্ত সিনিয়র সহকারি কমিশনার হিসেবে বিভাগীয় কমিশনার অফিস, চট্টগ্রাম এবং ২০২০ সালে ১৫ অক্টোবর হতে অদ্যাবধি দাগনভূঁঞা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা হিসেবে সুনামের সাথে কাজ করে যাচ্ছেন। দাগনভূইয়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ইউএনও নাহিদা আক্তার নিজের সততা ন্যায়পরায়নতা ও কঠোর পরিশ্রম সেবা করার মানসিকতা নিয়ে কাজ করে স্বল্প সময়ে দাগনভূইয়া বাসীর মন জয় করেছেন । শুধু দায়িত্ববোধ নয়, তিনি মনে প্রাণে লালন করেন মানবিকতা। করোনা দুর্যোগের শুরু থেকে দ্বিতীয় ধাপ শুরু হওয়ার পর থেকে মানুষকে ভালো রাখার প্রত্যয় নিয়ে কাজ করছেন তিনি।

ছুটে চলছেন উপজেলার এপ্রান্ত থেকে ওপ্রান্তে। দাগনভূইয়া মানুষ যেন ভালো থাকে সে জন্য শুরু থেকে চালিয়ে যাচ্ছেন করোনা ভাইরাস নিয়ে সচেতনামুলক প্রচারনা। এছাড়া অসহায় মানুষের মাঝে সরকার নির্ধারিত ত্রান বিতরণ করে যাচ্ছেন সুষ্ঠু ও নিরপেক্ষ ভাবে। মানুষের যেন কোন কষ্ট না হয় সেজন্য তিনি নিজে দাঁড়িয়েছেন দাগনভূইয়া মানুষের পাশে।এটা তার দায়িত্বের পাশাপাশি মহানুভবতা ।

জনপ্রতিনিধিদের নির্দেশ দিয়েছেন অসহায় মানুষের জন্য কাজ করতে। সবশেষ তিনি কতোটা মানবিক তার প্রমান মিলে নিজ উদ্যোগে বিতরন করছেন খাদ্য সামগ্রী, ফল ফলাদিও শিশু খাদ্য। দিয়েছেন নবজাতকের জন্য নতুন জামা গত বছর ১৫ অক্টোবর ২০ সালে শেষের দিকে দাগনভূইয়া উপজেলায় যোগদান করার মাত্র ৯ মাসের মাথায় তিনি তার দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে দাগনভূইয়া মানুষের মন জয় করে নিয়েছেন। করোনার এ দু:সময়ে তিনি একজন নারী হয়ে দাগনভূইয়া মানুষের জন্য যা করছেন তা সর্বমহলে প্রশংসিত হচ্ছে।

অনেকে বলেছেন, একজন সরকারি কর্মকর্তার এমন মহানুভবতায় আমরা মুগ্ধ। দাগনভূইয়া করোনা আক্রান্ত অনেক পরিবারের মাঝে তাদের বাড়িতে গিয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অসহায় পরিবারকে সাহস দিয়েছেন । সকল বিপদে তিনি পাশ্বে আছেন জানিয়েছেন। ঐ পরিবারের জন্য ফল ফলাদি, খাদ্যসামগ্রী পৌছে দিয়েছেন। করোনায় মানবিক যোদ্ধা হয়ে প্রতিনিয়ত কাজ করে যাচ্ছেন, দাগনভূইয়া উপজেলার নির্বাহী কর্মকর্তা নাহিদা আক্তার ।

বৈশ্বিক মহামারী করোনা ভাইরাসের শুরু থেকে তিনি হাত গুটিয়ে বসে না থেকে ঝাঁপিয়ে পড়েছেন খাদ্য সঙ্কটে পড়া কর্মহীন অসহায়, দিনমজুর, খেটে খাওয়া, মধ্যবিত্ত, নিম্ন-মধ্যবিত্ত, প্রতিবন্ধী, রিক্সাচালক, সিএনজি অটোরিকশায় চালক, সেলুন দোকানদার, স্কুল শিক্ষক, ট্রাক ড্রাইভার, বেসরকারি মাদ্রাসার শিক্ষক, মসজিদের ইমাম মুয়াজ্জিন সহ দুস্থ ও হতদরিদ্রদের মাঝে সরকারী তহবিল এর পাশাপাশি নিজের ব্যক্তিগত তহবিল থেকে চাল, ডাল, তেল, সাবান, হ্যান্ড ওয়াশ, মাস্ক সহ নিত্যপ্রয়োজনীয় বিভিন্ন খাদ্যসামগ্রী ও নগদ অর্থ তুলে দিয়েছেন যাহা অনেকেরই অজানা।

ইউএনও নাহিদা আক্তার করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় মানুষকে বাঁচাতে তাদের সচেতন করতে তিনি রাতদিন একাকার করে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।যাতে করো দাগনভূইয়া বাসী করোনার ভয়াল থানা থেকে মুক্তি পায় । ইউএনও নাহিদা আক্তার দাগনভূইয়া বাসীকে পবিত্র ঈদ উল আযহার শুভেচ্ছা জানিয়ে বলেন,আমাদের দেশ থেকে এখন ও করোনা ভাইরাস যায়নি করোনার দ্বিতীয় ডেউ চলিতেছে ইতিমধ্যে ভারতীয় ভ্যারিয়েন্ট শনাক্ত হলো বাংলাদেশে।

তাই সকলের উদ্দ্যোশে বলতে চাই সকল’কে অবশ্যই জরুরী প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হবেন না। জরুরী প্রয়োজনে বের হলে মুখে মাস্ক ব্যবহার করুন ঘরে থাকুন সুস্থ থাকুন ।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com