বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:১৮ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীলংকা সফর নিশ্চিত হলে যেকোন সমন্বয় করতে প্রস্তুত বিসিবি অনুমতি না পাওয়ায় পেঁয়াজবাহী বহু ট্রাক ফিরে গেছে জাতীয় সংসদ ভবনের উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রেজেন্টেশন প্রত্যক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী রিজেন্টের সাহেদ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা প্রবাসী শ্রমিকদের আকামার মেয়াদ বাড়াতে সৌদি আরবের প্রতি বাংলাদেশের অনুরোধ বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৬০০ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে আরও ৩৭ জনের মৃত্যু শীতকালে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ শুরুর আশংকা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না :স্বাস্থ্যমন্ত্রী শীতকালে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসতে পারে:তথ্যমন্ত্রী রামগতি আলেকজান্ডার সড়কের বেহাল অবস্থা! জনদুর্ভোগ চরমে

বাইশে শ্রাবণ : কবিগুরু স্মরণ বাংলা সাহিত্যের উজ্জ্বল নক্ষত্র রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১০ আগস্ট, ২০২০, ৬.৩৩ পিএম
  • ৫৭ বার পঠিত
– অ আ আবীর আকাশ –
বাংলা সাহিত্যের অন্যতম দিকপাল ও বাংলা সাহিত্য রচনা করে নোবেল পুরস্কার পেয়েছেন বাঙালি কবি, বিশ্ব কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর। কবিগুরু যেমন সাহিত্যে অজস্র রসদ দিয়েছেন তেমনই বাঙালি সুখে-দুঃখে বারবার ফিরে যায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের কাছেই। বাঙালির এমন কোনো অনুভূতি নেই, যার প্রকাশ ঘটেনি ক্ষণজন্মা এই বাঙালির সৃজনকর্মে।
আমরা অবাক না হয়ে পারি না এই বিশ্বে যখন কভিড-১৯-এর মহামারি চলছে, তখনো প্রাসঙ্গিক রবীন্দ্রনাথ। জীবদ্দশায় তিনি প্লেগ, ম্যালেরিয়া প্রভৃতির বীভৎস রূপ দেখেছেন। প্লেগ সচেতনতায় রাস্তায় নেমেছিলেন। যুক্ত হয়েছিলেন হাসপাতাল নির্মাণকাজে। আর যা লিখেছিলেন তা এখনো প্রাসঙ্গিক। তিনি লিখেছিলেন, ‘ম্যালেরিয়া-প্লেগ-দুর্ভিক্ষ কেবল উপলক্ষমাত্র, তাহারা বাহ্য লক্ষণ—মূল ব্যাধি দেশের মজ্জার মধ্যে প্রবেশ করিয়াছে।’
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর একাধারে কবি, ঔপন্যাসিক, নাট্যকার, সংগীতজ্ঞ, প্রাবন্ধিক, দার্শনিক, ভাষাবিদ, চিত্রশিল্পী-গল্পকার। তিনি কবিতা লেখা শুরু করেন আট বছর বয়সে। ১৮৭৪ সালে ‘তত্ত্ববোধিনী পত্রিকা’য় তার প্রথম লেখা কবিতা ‘অভিলাষ’ প্রকাশিত হয়। অসাধারণ সৃষ্টিশীল লেখক ও সাহিত্যিক হিসেবে সমসাময়িক বিশ্বে তিনি খ্যাতি লাভ করেন। লিখেছেন বাংলা ও ইংরেজি ভাষায়।
বিশ্বের বিভিন্ন ভাষায় তার সাহিত্যকর্ম অনূদিত হয়েছে। বিভিন্ন দেশের পাঠ্যসূচিতে তার লেখা সংযোজিত হয়েছে। ১৮৭৮ সালে তার প্রথম কাব্যগ্রন্থ ‘কবিকাহিনী’ প্রকাশিত হয়। এ সময় থেকেই কবির বিভিন্ন ধরনের লেখা দেশ-বিদেশে পত্রপত্রিকায় প্রকাশ পেতে থাকে। ১৯১০ সালে প্রকাশিত হয় তার ‘গীতাঞ্জলি’ কাব্যগ্রন্থ। এই কাব্যগ্রন্থের ইংরেজি অনুবাদের জন্য তিনি ১৯১৩ সালে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার লাভ করেন।
ভয়াবহ পরিস্থিতিতেও এবার পালিত হয়েছে বাংলা সাহিত্যের সবচেয়ে উজ্জ্বল নক্ষত্র কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের মৃত্যুবার্ষিকী। বৃহস্পতিবার, ২২ শ্রাবণ কবিগুরুর ৭৯তম প্রয়াণ দিবস গেলো।
কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরকে বিশেষভাবে স্মরণ করার জন্য দুটি দিন রয়েছে—পঁচিশে বৈশাখ এবং বাইশে শ্রাবণ। আজ ২২শে শ্রাবণ, বিশ্বকবির ৭৮তম প্রয়াণ দিবস। বাংলাদেশ ও ভারতে এ দুটি দিনেই তাকে বিশেষভাবে স্মরণ করা হয়। কিন্তু এমন কোনদিন নেই যেদিন তাকে আমরা স্মরণ করি না। বাংলা ভাষা ও বাঙালী সংস্কৃতির সঙ্গে রবীন্দ্রনাথ ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছেন। জড়িয়ে রয়েছে আমাদের জাতীয় সঙ্গীতের সঙ্গে তার নাম। তাকে আমরা ভালবাসি শুধু কবি, সঙ্গীত রচয়িতা বা সুরস্রষ্টা হিসেবেই নয়, আমাদের মাতৃভাষার উন্নয়নে তিনি যে কাজ করে গেছেন, মাতৃভাষাকে বিশ্ব অঙ্গনে পরিচিত করানোর জন্য তার যে অবদান, সেইজন্যও আমরা তাকে ভালবাসি, শ্রদ্ধা ও সম্মান জানাই। তার প্রতি বাংলাভাষী মানুষের কৃতজ্ঞতার অন্ত নেই।
১৯৪১ সালের ৬ আগস্ট, বাংলা ১৩৪৮ বঙ্গাব্দের ২২ শ্রাবণ কলকাতার জোড়াসাঁকোর ঠাকুরবাড়িতে ৮০ বছর বয়সে রবীন্দ্রনাথ পরলোকগমন করেন। প্রবল অনুরাগ ও অকুণ্ঠ শ্রদ্ধার আসনে অধিষ্ঠিত রবীন্দ্রনাথ বাঙালির প্রাণের মানুষ। যত দিন যাচ্ছে, রবীন্দ্রদর্শন উজ্জ্বল থেকে উজ্জ্বলতর হচ্ছে মানুষের মননে-মস্তিষ্কে আর জীবনাচারে।
কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর মৃত্যু নিয়ে বলেছেন— ‘সংসারের বাহিরেতে কিছুই না থাকে যদি, আছে তবু দয়াময় মৃত্যু’ (বিসর্জন)। আরো লিখেছেন– ‘জীবন যাহারে বলে মরণ তাহারি নাম/ মরণ তো নহে তারপর’ (অনন্ত মরণ)। তাই অনেক সময় ২২ শ্রাবণ রবীন্দ্রনাথের জীবনে অন্য এক মাধুর্যে ধরা দিয়েছে যেন। বছর ঘুরেই তো বাইশে শ্রাবণ আসে। বিশ্বব্যাপী রবিভক্তদের কাছে বাইশে শ্রাবণ দিনটি শোকের, শূন্যতার। রবীন্দ্র কাব্যসাহিত্যের বিশাল একটি অংশে যে পরমার্থের সন্ধান করেছিলেন, সেই পরমার্থের সঙ্গে তিনি লীন হয়েছিলেন এদিন।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর এক জীবনে সাহিত্যের এমন বিচিত্র এক জগৎ রচনা করেছেন, যা বাংলা ভাষাকে সমৃদ্ধ করার পাশাপাশি বিশ্বসাহিত্যের আসরে করেছে মহিমান্বিত। বিপুল তাঁর রচনা, বিচিত্র তাঁর বিষয়। তিনি যেখানে হাত দিয়েছেন সেখানেই ফলেছে রাশি রাশি সোনা। কবিতা, গল্প, উপন্যাস, নাটক, প্রবন্ধ, সংগীত, ভ্রমণকাহিনি, চিঠিপত্র, সমালোচনা, চিত্রকলা সমৃদ্ধ হয়েছে তাঁর অজস্র অনন্য সৃষ্টিতে।
১৯১৩ সালে ‘গীতাঞ্জলি’ কাব্যগ্রন্থের জন্য তাঁর নোবেলপ্রাপ্তি বাংলা সাহিত্যকে বিরল গৌরব এনে দেয়। শুধু সৃজনশীল সাহিত্য রচনায় নয়, সমাজ, রাষ্ট্র, শিক্ষা, অর্থনীতি নিয়ে স্বকীয় ভাবনাও তাঁকে অনন্য মর্যাদায় অধিষ্ঠিত করেছে। গ্রামীণ দারিদ্র্য বিমোচন ও গণশিক্ষার যে অগ্রযাত্রা আমরা এখন লক্ষ করি, রবীন্দ্রনাথ সেই সময় নওগাঁর পতিসর ও কুষ্টিয়ার শিলাইদহে, পরবর্তীকালে শান্তিনিকেতনে সে ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করেছিলেন। গরিব কৃষক প্রজার কল্যাণে তিনি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন কৃষি সমবায় ব্যাংক।
পরে নোবেল পুরস্কারের টাকার একটি অংশও এই ব্যাংকে যোগ করেছিলেন। ঔপনিবেশিক শিক্ষাব্যবস্থার বাইরে গিয়ে দেশজ আদর্শ লালিত শিক্ষাব্যবস্থা গড়ার লক্ষ্যে তিনি প্রতিষ্ঠা করেন শান্তিনিকেতন।১৩৪৮ বঙ্গাব্দের ২২ শ্রাবণ। প্রয়াণ হল রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের। কবি চেয়েছিলেন, তাঁর শ্রাদ্ধ হবে শান্তিনিকেতনে ছাতিমগাছের তলায় বিনা আড়ম্বরে বিনা জনতায়। কথা রেখেছিল শান্তিনিকেতন।
কবির মৃত্যুকে শোকসভা করে নয়, বরং নতুন প্রাণের আবাহনের মধ্য দিয়েই তাঁকে চির অমর করে রেখেছে। ১৩৪৯ বঙ্গাব্দ থেকেই বাইশে শ্রাবণ দিনটি বৃক্ষরোপণ উৎসব হিসেবে পালন করে আসছে শান্তিনিকেতন। নিজের জীবনকালেই কবি বহুবার পালন করেছেন বৃক্ষরোপণ উৎসব। ১৩৩২ বঙ্গাব্দের ২৫ বৈশাখ উত্তরায়ণে নিজের হাতে পঞ্চবটী (বট, অশ্বত্থ, অশোক, বেল, আমলকি) প্রতিষ্ঠা করেছিলেন রবীন্দ্রনাথ। তাঁর মৃত্যুর পরে সেই বৃক্ষরোপণের দিনটিই স্থির হয়ে গেল বাইশে শ্রাবণ তারিখে।
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর সেই অনন্য ব্যক্তিত্ব যাঁর লেখা গান বাংলাদেশ ও ভারত দুই দেশের জাতীয় সংগীত হিসেবে মনোনীত হয়েছে। করোনাকালীন পরিস্থিতির কারণে ২২শে শ্রাবণ উপলক্ষে এবার আড়ম্বরপূর্ণ ভাবে কোনো আনুষ্ঠানিকতার আয়োজন না হলেও তবুকম হয়নি আলোচনা। অন্যদিকে বাঙালি মননের চিরনবীন এই সারথির প্রয়াণ দিবসে ভার্চুয়াল অনুষ্ঠান আয়োজন করা হয়েছে। সংগীতানুষ্ঠানের আয়োজন করেছে সমন্বয় পরিষদ ও উদীচী শিল্পীগোষ্ঠী। রবীন্দ্র স্মরণের এই উৎসবে আজ কোনো শিল্পীর কণ্ঠে উৎসারিত হবে হয়তো অমীয় সুরের ধারা, যেখানে ধ্বনিত হবে, ‘আছে দুঃখ, আছে মৃত্যু বিরহদহন লাগে/তবুও শান্তি, তবু আনন্দ, তবু অনন্ত জাগে তবু প্রাণ নিত্যধারা, হাসে সূর্য চন্দ্র তারা…’।
আমাদের উদরে শুণ্যতার ছোঁ ছোঁ আগুন জ্বললেও ঠিকই  আমরা রবীন্দ্রনাথ তথা সাহিত্যে ডুব দিতে ভুলি না। হোক কবিতা, গল্প, ছড়া বা গীত সংগীত। এতো মায়ার সঞ্চার করে হৃদয়ে যা ভাষায় প্রকাশ করা মুশকিলই বটে। বাঙালি মননে চিন্তা ও চেতনায় সাহিত্য অবিচ্ছেদ্য অংশ।
জয়তু কবিগুরু, বিশ্ব কবি, বাংলা ভাষাভাষীর কবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর।
লেখক: কবি প্রাবন্ধিক কলামিস্ট ও সাংবাদিক।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com