রবিবার, ২৩ জুন ২০২৪, ১১:৪৩ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম
বিশ্বকাপের সুপার এইটের ম্যাচে অস্ট্রেলিয়াকে ২১ রানে হারিয়েছে আফগানিস্তান সারাদেশে বিষধর সাপ রাসেলস ভাইপারের উপদ্রব স্বাস্থ্যকেন্দ্র অ্যান্টি-ভেনম মজুদের নির্দেশ পবিত্র হজ পালন শেষে গত বৃহস্পতিবার থেকে দেশে ফেরা শুরু করেছেন হাজিরা দেশের প্রতিটা অর্জনে আওয়ামী লীগের অবদান রয়েছে : প্রধানমন্ত্রী দক্ষিণ কোরিয়ায় যৌথ সামরিক মহড়ায় মার্কিন বিমানবাহী রণতরী সাম্প্রদায়িক অপশক্তিকে প্রতিহত করাই আওয়ামী লীগের আগামী দিনের চ্যালেঞ্জ : সেতুমন্ত্রী সোনালী ব্যাংকের পরিচালক পদ থেকে এনবিআর সদস্য মতিউর অপসারিত আওয়ামী লীগের ৭৫তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীতে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন প্রধানমন্ত্রীর সালথায় বাংলাদেশ খেলাফত মজলিস এর কমিটি গঠন ও যোগদান সভা অনুষ্ঠিত  কাউখালীতে আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পমাল্য অর্পণ

লিবিয়ায় বন্যায় নিহত ১১ হাজার ছাড়িয়েছে

  • আপডেট সময় শনিবার, ১৬ সেপ্টেম্বর, ২০২৩, ৪.৫২ পিএম
  • ৫৩ বার পড়া হয়েছে

লিবিয়ার প্লাবিত শহরে অনুসন্ধানকারীরা ১০ হাজারেরও বেশি নিখোঁজদের সন্ধান করছে। এরই মধ্যে  যেখানে মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১১ হাজারে।

লিবিয়ার কর্তৃপক্ষ শুক্রবার বন্যাকবলিত দেরনা শহরে প্রবেশ সীমিত করেছে, যাতে অনুসন্ধানকারীরা এখনও নিখোঁজ এবং মৃত বলে ধারণা করা ১০ হাজারেরও বেশি মানুষকে উদ্ধারের জন্য কাদা সরিয়ে ফাঁকা ভবনগুলোতে সহজে অনুসন্ধান করতে পারে।

কর্মকর্তারা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, পানিবাহিত রোগের বিস্তার এবং সোমবার ভোরে দুটি বাঁধ ধসে পড়ায় শহরের ভেতরে পানির স্রোতে ভেসে যাওয়া বিস্ফোরক অস্ত্রের কারণে মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

তেল সমৃদ্ধ লিবিয়ায় এই বিপর্যয়  কিছু বিরল ঐক্য নিয়ে এসেছে। যা বছরের পর বছর যুদ্ধ এবং গৃহযুদ্ধের পর দেশের পূর্ব ও পশ্চিমে বিভিন্ন মিলিশিয়া বাহিনী এবং আন্তর্জাতিক পৃষ্ঠপোষকদের সমর্থিত প্রতিদ্বন্দ্বী সরকারের মধ্যে বিভক্ত। কিন্তু বিরোধী সরকারগুলো এই সঙ্কটের মোকাবিলায় লড়াই করেছে। তবে বিভ্রান্তিতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্থ অঞ্চলে সহায়তা পেতে অসুবিধা হচ্ছে। বেশ কয়েকটি সেতু সহ দেরনার অবকাঠামো ধ্বংসের কারণে পুনরুদ্ধারের প্রচেষ্টা ব্যাহত হয়েছে।

সাহায্যদানকারী  গোষ্ঠীগুলো  শহরে তাদের প্রবেশের সুবিধার্থে  কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে। যাতে তারা খারাপভাবে বেঁচে থাকা ব্যক্তিদের মধ্যে প্রয়োজনীয় খাবার, বিশুদ্ধ পানি এবং চিকিৎসা সরঞ্জাম বিতরণ করতে পারে। সঙ্কটের চার দিন পরে কেন্দ্রীয় তদারকির অভাব স্পষ্ট ছিল। ডের্নার কিছু অংশের মানুষ কিছু সরবরাহ এবং সম্পদ পেয়েছিল। তবে অন্যগুলোতে তাদের নিজেদের রক্ষা করার জন্য ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল।

লিবিয়ায় ডক্টরস উইদাউট বর্ডার্সের মেডিকেল কো-অর্ডিনেটর মানোয়েল কার্টন বলেন, শহরে প্রবেশের জন্য ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হয় এবং ভেতরে প্রবেশের পর সারা দেশ থেকে স্বেচ্ছাসেবকদের খুঁজে পাওয়া যায়, যারা মাঝে মাঝে দের্নায় মানবিক কর্মীদের বাধা হয়ে দাঁড়ায়।

তিনি বলেন, ‘সবাই সাহায্য করতে চায়। কিন্তু এটা বিশৃঙ্খল হয়ে উঠছে।’ ‘সমন্বয়ের একটি বড় প্রয়োজন আছে।’

পূর্ব লিবিয়ার স্বাস্থ্যমন্ত্রী ওথমান আব্দুলজালিল বলেছেন, দলগুলো শহরের বাইরে এবং আশেপাশের শহরগুলোতে গণকবরে লাশ দাফন করেছে।

তবে কর্মকর্তারা উদ্বিগ্ন যে আরও হাজার হাজার মানুষকে এখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্য রেড ক্রসের আফ্রিকা বিষয়ক আঞ্চলিক ফরেনসিক ম্যানেজার বিলাল সাবলুহ বলেন, ‘লাশগুলো রাস্তায় পড়ে আছে, তীরে ভেসে যাচ্ছে এবং ধসে পড়া ভবন ও ধ্বংসাবশেষের নিচে চাপা পড়ে আছে।

তিনি বলেন, ‘মাত্র দুই ঘন্টার মধ্যে আমার একজন সহকর্মী দেরনার কাছে সমুদ্র সৈকতে ২০০ টিরও বেশি মৃতদেহ গণনা করেছেন।’

ডুবুরিরা ভূমধ্যসাগরীয় উপকূলীয় শহরের পানিতেও অনুসন্ধান করছে।

কার্টন শুক্রবার বলেন, ডক্টরস উইদাউট বর্ডারস টিমমের পরিদর্শন করা এলাকার রাস্তা থেকে বেশিরভাগ মৃতদেহ পরিষ্কার করা হয়েছে। তবে অন্যান্য গুরুতর লক্ষণও দেখা গেছে, যার মধ্যে রয়েছে যে তিনটি মেডিকেল সেন্টারের মধ্যে একটিতে তারা গিয়েছিল ‘কারণ প্রায় সমস্ত চিকিৎসা কর্মী মারা গিয়েছিল।’ তিনি বলেন, বন্যায় বাস্তুচ্যুত হাজার হাজার মানুষ আশ্রয়কেন্দ্রে বা বন্ধু বা আত্মীয়স্বজনের সঙ্গে অবস্থান করছে।

বন্যা থেকে বেঁচে যাওয়া আদেল আয়াদ তার ভবনের চতুর্থ তলায় পানি উঠার সময় দেখার বর্ণনা দিয়ে বলেন, ‘ঢেউগুলো মানুষকে ভবনের ওপর থেকে ভাসিয়ে নিয়ে গেছে, এবং আমরা দেখতে পেলাম মানুষ বন্যার পানিতে ভাসছে।’ তাদের মধ্যে প্রতিবেশীও ছিল।

পূর্ব লিবিয়ার অ্যাম্বুলেন্স ও জরুরি সেবার মহাপরিচালক সালাম আল-ফারগানি বৃহস্পতিবার রাতে বলেন, দেরনা থেকে বাসিন্দাদের সরিয়ে নেওয়া হবে এবং কেবল অনুসন্ধান ও উদ্ধারকারী দলকেই প্রবেশের অনুমতি দেওয়া হবে। তবে শুক্রবার এ ধরনের প্রত্যাবাসনের কোনো লক্ষণ দেখা যায়নি।

স্বাস্থ্য কর্মকর্তারা সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, জমে থাকা পানিবাহিত রোগ বিস্তারের পথ খুলে দেয়।  তবে তিনি বলেছেন, মৃতদেহগুলো তাড়াহুড়ো করে দাফন বা গণকবরে রাখার দরকার নেই। কারণ এই জাতীয় ক্ষেত্রে মৃতদেহগুলো সাধারণত ঝুঁকি তৈরি করে না।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মুখপাত্র ডাঃ মার্গারেট হ্যারিস জেনেভায় সাংবাদিকদের বলেছেন, ‘আপনার কাছে প্রচুর জমে থাকা পানি রয়েছে। এর অর্থ এই নয় যে মৃতদেহগুলো একটি ঝুঁকি তৈরি করে, তবে এর অর্থ এই যে পানি নিজেই সমস্ত কিছু দ্বারা দূষিত।’ ‘সুতরাং আপনাকে সত্যিই নিশ্চিত করতে হবে যে মানুষের জন্য নিরাপদ পানির সরবরাহ রয়েছে।’

ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্য রেড ক্রসের মুখপাত্র আইমিন ট্রাবেলসি সতর্ক করে দিয়ে বলেছেন, কাদায় আরেকটি বিপদ লুকিয়ে আছে। আর তা হলো দেশটির দীর্ঘায়িত সংঘাতের কারণে ফেলে যাওয়া ল্যান্ডমাইন ও অন্যান্য বিস্ফোরক।

লিবিয়ায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় থেকে অবশিষ্ট বিস্ফোরক রয়েছে, তবে বেশিরভাগই ২০১১ সালে শুরু হওয়া গৃহযুদ্ধের। আন্তর্জাতিক ল্যান্ডমাইন অ্যান্ড ক্লাস্টার মিউনিশন মনিটরের তথ্য অনুযায়ী, ২০১১ থেকে ২০২১ সালের মধ্যে লিবিয়ায় ল্যান্ডমাইন বা অন্যান্য অবশিষ্ট বিস্ফোরক অস্ত্রের আঘাতে প্রায় তিন হাজার ৪৫৭ জন নিহত বা আহত হয়েছেন।

বন্যার আগেও, ট্রাবেলসি বলেছিল যে এলাকাগুলো থেকে মাইন শনাক্ত এবং অপসারণের ক্ষমতা সীমিত ছিল। বন্যার পরে তিনি বলেছিলেন, বিস্ফোরক ডিভাইসগুলো ‘নতুন, অনাবিষ্কৃত এলাকায়’ নিয়ে যাওয়া হতে পারে। যেখানে তারা অনুসন্ধান দলগুলোর জন্য তাৎক্ষণিক হুমকি এবং বেসামরিক নাগরিকদের জন্য দীর্ঘমেয়াদী হুমকি তৈরি করতে পারে।

কার্টন শহরে পানি-সম্পর্কিত রোগের প্রাদুর্ভাবের উদ্বেগের প্রতিধ্বনি করেছে। এর বাইরে, তিনি বলেছিলেন, বেঁচে থাকা, প্রত্যক্ষদর্শী এবং চিকিৎসা কর্মীদের মধ্যে ‘মানসিক স্বাস্থ্য সহায়তার বিশাল প্রয়োজন’ রয়েছে।

লিবিয়ার রেড ক্রিসেন্টের মতে, বৃহস্পতিবার পর্যন্ত দেরনায় বন্যায় ১১ হাজার ৩০০ জন মারা গেছে। আরও ১০ হাজার ১০০ জন নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে।  যদিও তাদের মধ্যে অনেককে জীবিত পাওয়া যাবে এমন আশা নেই বলে জানিয়েছে সাহায্যকারী দলটি।  ঝড়টিতে দেশের অন্যান্য স্থানেও প্রায় ১৭০ জন নিহত হয়েছে।

লিবিয়ার গণমাধ্যম জানিয়েছে, এই দুর্যোগে কয়েক ডজন সুদানী অভিবাসী নিহত হয়েছে। দেশটি মধ্যপ্রাচ্য এবং আফ্রিকান অভিবাসীদের জন্য একটি প্রধান ট্রানজিট পয়েন্ট হয়ে উঠেছে। যারা সংঘর্ষ এবং দারিদ্র্য থেকে পালিয়ে ইউরোপে একটি উন্নত জীবন খোঁজার জন্য পাড়ি জমায়।

বর্ষাকালে লিবিয়ায় প্রায়ই বন্যা দেখা দেয়। তবে খুব কমই এত ধ্বংসের ঘটনা ঘটে। বিজ্ঞানীরা বলেছেন, ঝড়টি জলবায়ু পরিবর্তনের কিছু বৈশিষ্ট্য বহন করে এবং অত্যন্ত উষ্ণ সমুদ্রের পানি ঝড়টিকে আরও শক্তি দিতে পারে। এটি আরও ধীরে ধীরে চলতে পারত বলেও মনে করেন তারা।

কর্মকর্তারা বলেছেন, লিবিয়ার রাজনৈতিক বিশৃঙ্খলাও প্রাণহানির জন্য ভূমিকা রেখেছে। দেরনার বাসিন্দা খলিফা ওথমান বলেছেন, তিনি বিপর্যয়ের মাত্রার জন্য কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছেন।

ওথমান বলেছিলেন, ‘আমার ছেলে এই বছরেই ডাক্তার হিসেবে স্নাতক হয়েছেন। আমার ভাগ্নে এবং তার সমস্ত পরিবার, আমার নাতি, আমার মেয়ে এবং তার স্বামী সবাই নিখোঁজ, এবং আমরা এখনও তাদের সন্ধান করছি।’ ‘কোনো প্রস্তুতি না থাকায় সকল মানুষ বিরক্ত এবং ক্ষুব্ধ।’

শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর

Leave a Reply

Your email address will not be published.

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved © 2022 songbadsarakkhon.com
Theme Download From ThemesBazar.Com