শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০২:৩৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
ভারতে গত ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসের ৪ হাজার রোগীর মৃত্যু ঠাকুরগাঁওয়ের পীরগঞ্জে শাগুনি শালবনে ঈদের আনন্দে গন জমায়েত করোনাকালে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে থানায় প্রীতিভোজ ইসরায়েল থেকে সেনা ও বেসামরিক নাগরিক সরিয়ে নিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র ইসরাইলে রকেট হামলা চালিয়েছে লেবানন গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে ২৬ জনের মৃত্যু ঈদে যারা গ্রামে গিয়েছেন তারা যখন শহরে ফিরবে সেই ঢল নিয়ন্ত্রণের সুপারিশ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ঈদে করোনামুক্ত বিশ্বের প্রার্থনা তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ ঈদ-উল-ফিতরে আমাদের মাঝে গড়ে উঠুক করোনাসহ সকল সংকট জয়ের সুসংহত বন্ধন:সেতুমন্ত্রী অসহায় ও বিপন্ন মানুষের পাশে দাঁড়ানোর জন্য সর্বোত্তম চেষ্টা চালাতে সকলের প্রতি আহ্বান : রাষ্ট্রপতির

আমের প্রচুর ফলন হলেও ঝরে পড়ায় চিন্তিত আমচাষীরা !

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ২৭ এপ্রিল, ২০২১, ৫.০৩ পিএম
  • ১০ বার পঠিত

অ আ আবীর আকাশ, লক্ষ্মীপুর প্রতিনিধিঃ গেল বছরের তুলনায় এবার আমের ফলন আকাঙ্ক্ষার চেয়েও বেশি হয়েছে। কিন্তু যতই দিন যাচ্ছে ততই আশায় গুড়েবালি। ঝরে পড়ছে থোকা থোকা আম। নিচের অংশ কালো হয়ে ফেটে পঁচে পড়ে যাচ্ছে। কোন প্রকার স্প্রে বা ওষুধ ছিটিয়েও মিলছেনা ফল। কৃষি বিভাগ থেকেও সাড়া পাওয়া যাচ্ছে না বলে জানা গেছে। উপমহাদেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় ফল হচ্ছে আম।

কারণ এ ফলের বৈচিত্র্যময় ব্যবহার, পুষ্টিমান ও স্বাদে গন্ধে অতুলনীয়। বাংলাদেশের উত্তরাঞ্চলে এ আমের ব্যাপক বাণিজ্যিক চাষ হলেও সারা দেশেই আম গাছ রয়েছে ও কমবেশি আমের চাষ হচ্ছে। আম চাষিরা জানিয়েছেন- ‘অন্যান্য বছরের তুলনায় এ বছর আম কালো হয়ে ফেটে পড়া তারা আর দেখেননি।

 

গাছে প্রচুর ফলন এলো তবে তা ঝরে পড়ে গাছ শুন্য হয়ে যাচ্ছে।’ পঁচে ফেটে পড়া আমগুলো খাওয়া বা আমসত্ত্ব দেয়া অনুপোযোগী বলেও আমচাষিরা জানিয়েছেন। লক্ষ্মীপুর কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন এ বছর খরা হওয়ার কারণে আমে মোড়ক লেগেছে।

যথাসময়ে ঔষধ, পানি ছিটালে এর ক্ষতির হাত থেকে রক্ষা পাওয়া যায়। কর্মকর্তারা আরও জানিয়েছেন ফলন্ত আম গাছের পরিচর্যা, পরগাছা দমন, সার প্রয়োগ, সেচ প্রয়োগ, পুরনো বাগান নবায়নের মাধ্যমে আম গাছ ও ফল দুটোই রক্ষা করা সম্ভব। নাটোর সিটি কলেজের কৃষি বিভাগের প্রভাষক কৃষিবিদ এম এ মজিদ মুঠোফোনে এ প্রতিবেদককে জানিয়েছেন-‘মাটির নিচে রসের অভাবে আমের গুটি ঝরে গেলে গাছের চারপাশে নিয়মিত সেচ দিতে হবে।

বৃষ্টি না হওয়া পর্যন্ত ১৫ দিন পর পর সেচ দিলে আমের গুটি ঝরা রোধ হয়।’ তিনি আম গাছে ‘অ্যানথ্রাক্স’ নামের তরল ঔষধ স্প্রে করার পরামর্শ দিয়েছেন আমচাষীদের।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com