বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৮:৫০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
মহিলা ইউপি সদস্য কতৃক সাংবাদিকদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন। বিএমএসএফ তিতাস উপজেলা শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন: আহ্বায়ক সাগর- সদস্য সচিব জুয়েল। সাংবাদিকদের ১৪ দফা দাবিতে যাত্রাবাড়ীতে বিএমএসএফে’র মতবিনিময় সভা। ফুলবাড়িয়ায় বিদ্যুৎ পৃষ্ট হয়ে যুবলীগ নেতার মৃত্যু। বেপোরোয়া গতিতে গাড়ী চলায় সড়ক দুর্ঘটনায় আল আমিন (৩৭) নামে এক ভ্যান চালক নিহত। নেত্রকোনায় জাইকার বেড়িবাঁধে ভাঙ্গন, ফসলের ক্ষয়ক্ষতি। ময়মনসিংহে বিভিন্ন আয়োজনে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত। ঝালকাঠি নাগরিক ফোরামের যুব বিষয়ক সম্পাদক মিরাজের পিতৃবিয়োগে শোক প্রকাশ। সাংবাদিকদের ১৪ দফা বাস্তবায়নে ঈশ্বরদীতে বিএমএসএফ’র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। পদ্মা সেতু দিয়ে পারাপারের জন্য টোল নির্ধারণ।

বিশ্বকবির জন্মোৎসব উপলক্ষে নওগাঁর পতিসরের  কাছারিবাড়ীসহ পুরো এলাকা হয়ে উঠেছে উৎসবমুখর  প্রতিটি বাড়িতে এসেছেন আত্মীয়-স্বজন

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ৯ মে, ২০২২, ৬.২৪ পিএম
  • ২১ বার পঠিত
সোহেল রানা নওগাঁ প্রতিনিধিঃ নওগাঁর আত্রাই উপজেলার নাগর নদের তীরে বিশ্বকবি
রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের পতিসর কুঠিবাড়ী। পৈত্রিক স‚ত্রে প্রাপ্ত কালিগ্রাম পরগনার
জমিদারী দেখাশোনার জন্য কবিগুরু ১৮৯১ সালে সর্বপ্রথম পতিসরে আসেন।
জমিদারী দেখা শোনার জন্য এলেও প্রকৃতি ও মানবপ্রেমী কবি অবহেলিত পতিসর
এলাকার মানুষের জন্য দাতব্য চিকিৎসালয় ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ অনেক জনহৈতিষি
কাজ করেন। এখানকার কৃষকের কল্যানে নোবেল পুরস্কারের ১ লাখ ৮ হাজার টাকা
দিয়ে তিনি এখানে একটি কৃষি ব্যাংক স্থাাপন করেন। কবির সাহিত্য সৃষ্টির
একটি বিশাল অংশ জুড়ে রয়েছে পতিসর। পতিসরে বসেই কবি- চিত্রা, প‚র্ণিমা,
সন্ধ্যা, গোরা, ঘরে-বাইরেসহ অসংখ্য গ্রš’ রচনা করেন। ১৯৩৭ সালের ২৭ জুলাই
রবীন্দ্রনাথ শেষবারের মত পতিসরে আসেন। রবীন্দ্রনাথের স্মৃতি বুকে নিয়ে আজও
দাড়িয়ে আছে পতিসর কুঠিবাড়ী। প্রতœতত্ত¡ বিভাগ ১৯৯০ সালে এ
কুঠিবাড়ীটির দায়িত্ব গ্রহণ করেন। ক্রয়স‚ত্রে ১৮৩০ সালে রবীন্দ্রনাথের পিতামহ
দ্বারকানাথ ঠাকুর কালিগ্রাম পরগনা জমিদারির অন্তর্ভ‚ক্ত করেন। পতিসর
কালিগ্রাম পরগনার সদর দপ্তর। নওগাঁ, বগুড়া ও নাটোর জেলার ৬শটি গ্রাম নিয়ে
কালিগ্রাম পরগনা গঠিত। এর আয়তন ছিল ২৩০ বর্গমাইল। রাতোয়াল আর
ভান্ডারগ্রাম আরো দুটি সাব কাচারী ছিল। কালিগ্রাম পরগনার সীমানা ছিল
উত্তরে মালশন আদমদিঘী দক্ষিনে আত্রাই নদী, প‚র্বে নাগর নদীর পশ্চিম তীর আর
পশ্চিমে নাগর বিধৌত বাঁকা-কাশিয়াবাড়ি গ্রাম। কলকাতার জোড়াসাঁকোর
ঠাকুর পরিবারের বাংলাদেশে ছিল ৩টি জমিদারী। পতিসরে কবির গুরুর আসা
ইচ্ছাকৃতভাবে নয়, অনেকটাই ভাগ্যক্রমে। এজমালি সম্পত্তির সবশেষভাগে
বিরাহিমপুর ও কালিগ্রাম পরগনার মধ্যে সত্যেন্দ্র পুত্র সুরেন্দ্রনাথকে তাঁর পছন্দের
অংশ বেছে নিতে বললে সে তখন বিরাহিমপুরকে পছন্দ করে তখন স্বভাবতই
রবীন্দ্রনাথের অংশে এসে পরে কালিগ্রাম পরগনা যার সদর পতিসর। প্রথমে পতিসর
তাঁকে ভাল লাগেনি। কিন্তু পরবর্তীতে পতিসরের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য তাঁকে
মুগ্ধ করে। মুগ্ধ করে কালীগ্রামের সহজ সরল প্রজা সাধারনের ভক্তি ও শ্রদ্ধা। এখানে
এসে তিনি কৃষকদের খুব কাছাকাছি আসতে সক্ষম হয়েছিলেন। এতে কৃষকের
অর্থনীতি সম্পর্ককে ভালো ধারনা জন্মেছিল। পতিসরের প্রতি রবীন্দ্রনাথের ছিল
অগাধ ভালবাসা, ছিল এখানকার মানুষের প্রতিও। তার বিচক্ষনতা দিয়ে প্রজাহ্নদয়
জয় করেছিলেন। জমিদারি পরিচালনা পদ্ধতিও ছিল আধুনিক ও বিজ্ঞান সম্মত। তাই
তিনি তাদের আপনজন হয়ে যান। তখন প্রজা ও জমিদারের সম্পর্কের ব্যবধান কমে
আসে। তিনি অনুন্নত পরগনার রাস্তা-ঘাট শিক্ষা, স্বাস্থ্যাসেবা ও দারিদ্র
বিমোচনসহ নানাবিধ উন্নয়নম‚লক কর্মস‚চি হাতে নেন। কর্মস‚চির মধ্যে
ছিল গ্রামে গ্রামে শিক্ষা, স্বাস্থ্যা, কৃষি শিল্প, ব্যাংক স্থাাপন, রাস্তাঘাট
নির্মান, ক‚প, দীঘি ও পুকুর খনন, জঙ্গল পরিস্কার, গ্রাম্য শালিশী ব্যবস্থাা ও
মহাজনের সুদের হাত থেকে দরিদ্র প্রজাদের রক্ষা করা। এসব কর্মস‚চি বাস্তবায়নের জন্য পরগনাকে ৩টি বিভাগে ভাগ করেন। কালিগ্রাম ”হিতৈষী সভা” নামে একটি সংগঠন তৈরী করেন। কালীগ্রাম পরগনার প্রজাদেরকে শিক্ষার আলোয়   আলোকিত করার জন্য তিনি ১৯১৩ সালে পতিসর, রাতোয়াল ও কামতা ৩টি বিভাগে ৩টি মধ্য ইংরেজী (এম.ই) স্কুল ও পতিসরে ছেলে রথীন্দ্রনাথের নামে ১টি হাইস্কুল স্থাপন করেন। স্কুলের ভবন, ছাত্রাবাস নির্মাণ ও অন্যান্য খরচ এস্টেট থেকে বহন করা
হতো। পতিসরে অবস্থিত কালীগ্রাম রথীন্দ্রনাথ ইনষ্টিটিউশনের প্রথমে নাম ছিল
পতিসর এম.ই স্কুল। পরবর্তীতে ১৯৩৭ সালে বিদ্যালয়টি হাইস্কুলে রুপান্তরিত
হয়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য এটি ছিল নওগাঁর জেলার তৃতীয় হাইস্কুল। ১৯১৩ সালের
জানুয়ারী মাসে রাতোয়াল বিভাগে একটি বিদ্যালয় এবং কামতায় আরো একটি
বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত হয়। প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রতিষ্ঠাতা বিশ্বকবি নিজেই। একথা বলা
মোটেই অত্যুক্তি হবে না যে, প‚র্ব বাংলায় ’জমিদারি’ করতে এসে রবীন্দ্রনাথ
প্রকৃতই নিজেকে আবিস্কার করেছিলেন নতুন করে। পতিসরে বসেই তিনি
গোরা ও ঘরে বাহিরে (অংশ বিশেষ) উপন্যাস, ছোট গল্প ’প্রতিহিংসা’ ও
ঠাকুরদা, লিখার রসদ পেয়েছিলেন। প‚র্ণিমা, সন্ধ্যা, চৈতালি-মধ্যাহ্ন,
পল্লীগ্রামে, সামান্য লোক, দুর্লভ জন্ম, খেয়া, কর্ম, মেঘদ‚ত, দিদি, পরিচয়,
অনন্তপথের মত অনেক কবিতা রচনা করেছিলেন। রচনা করেছিলেন কিছু হৃদয় স্পর্শ
করার মত গান যেমন বিধি ডাগর আাঁখি, জলে ডোবা চিকন শ্যামল, তুমি
নবরুপে এসো প্রান্তে। রবীন্দ্রনাথ তাঁর হৃদয়ের অন্তঃস্থলে অনুভব করেন দরিদ্র
প্রজাদের দুঃখ দুঃদশার কথা। জমিদারি পরিচালনার ক্ষেত্রে তিনি কখনও প্রজা পীড়ক
হতে পারেননি। উল্টো দিকে তিনি খাজনা মওকুফ করেছিলেন তার সমগ্র
জমিদারীতে। পল্লীর উন্নয়ন ও কর্ম পরিকল্পনার রুপকার ছিলেন তিনি। এ পরিকল্পনার
বাস্তবায়ন হিসাবে এবং মহাজনদের হাত থেকে কৃষকদের মুক্ত করতে সমবায়
পদ্ধতিতে ১৯০৫ সালে কালিগ্রাম পরগনার পতিসরে কৃষি ব্যাংক স্থাপন
করেছিলেন। নোবেল পুরস্কারের টাকা এই ব্যাংকে বিনিয়োগ করা হয়। ১৯১০সালে
উত্তরবঙ্গের মহাপ্লাবনের পর আচার্য প্রফুল্লচন্দ্র রায় মহাশয়ের বন্যাত্রাণ ফান্ডে
কিছু টাকা উদ্বৃত্ত হইয়াছিল এবং এই টাকায় আমেরিকা হইতে কয়েকটি
ট্রাক্টর ক্রয় করা হয়। রবীন্দ্রনাথ একটি ট্রাক্ট্রর লইয়া পতিসর অঞ্চলে কলের লাঙ্গল দিয়া
জমি চাষ প্রবর্তন করেন। ট্রাক্ট্রর পাওয়া গেলে, কিন্তু চালক পাওয়া গেল না। পুত্র
রথীন্দ্রনাথ আমেরিকায় কৃষিবিদ্যা শিক্ষাকালে ট্রাক্ট্রর চালনা করিয়াছেন।
পতিসরে তাই তিনি ট্রাক্ট্ররের ড্রাইভাররুপে আশেপাশে জমি চাষ করিয়াছেন।
যন্ত্রদানবের কার্যকলাপ দেখিতে প্রথম দিন হাজার হাজার লোক পতিসরে উপস্থিত
হইয়াছিল। ১৯৩৭ সালে তিনি পতিসর ছেড়ে চলে যাওয়ার সময় সব সম্পদ প্রজাদের
মধ্যে দান করে দেন। কাচারী বাড়ির ভেতরে ঢুকতেই পড়বে রবিঠাকুরের আবক্ষ
ম‚র্তি। এর ভাস্কর কনক কুমার পাঠান। ঘরগুলো কবির ব্যবহার্য বিভিন্ন তৈজসপত্র,
নানা রকম সামগ্রী, তাঁর হস্তলিপি আর বিভিন্ন ছবিতে ভরা। একটি বাথটাব,
একটি নোঙর, বিশাল আয়না, আরাম কেদারা, ওয়্যারড্রব, ঘড়ি, গেøাব, সিন্দুক,
খাজনা আদায়ের টেবিল, খাট, আলমারি, দরজার পাল্লা, জানালা ইত্যাদি। পাশেই
রয়েছে কবির ছেলের নামে প্রতিষ্ঠিত রথীন্দ্রনাথ ইনস্টিটিউশন।
নওগাঁর জেলা প্রশাসক খালিদ মেহেদী হাসান জানান, রবীন্দ্র স্মৃতি বিজড়িত
পতিসর কাচাড়ী বাড়ি চত্বরে অবস্থিত দেবেন্দ্র মঞ্চে সকাল ১০টায় অনুষ্ঠানমালা শুরু হবে। এবারের প্রতিপাদ্য বিষয় হচ্ছে মানবতার সংকট ও রবীন্দ্রনাথ। খাদ্যমন্ত্রী
সাধন চন্দ্র মজুমদার এমপি অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন।
বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন নওগাঁ-২ আসনের সংসদ সদস্য
শহিদুজ্জামান সরকার, নওগাঁ-৪ আসনের সংসদ সদস্য মুহাম্মদ ইমাজ উদ্দিন
প্রামানিক, নওগাঁ-৫ আসনের সংসদ সদস্য ব্যারিষ্টার নিজাম উদ্দিন জলিল জন,
নওগাঁ-৬ আসনের সংসদ সদস্য আনোয়ার হোসেন হেলাল, সংস্কৃতি মন্ত্রনালয়ের
অতিরিক্ত সচিব মনিরুল আলম, পুলিশ সুপার আব্দুল মান্নান মিয়া, জেলা
আওয়ামীলীগের সভাপতি সাবেক এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল মালেক এবং জেলা
পরিষদের প্রশাসক এ্যাডভোকেট একেএম ফজলে রাব্বী। এ অনুষ্ঠানে সন্মানীত
আলোচক হিসেবে উপস্থিত থেকে আলোচনা করবেন রবীন্দ্র বিশেষজ্ঞ রাজশাহী
কলেজের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ প্রফেসর ড. মোঃ আশরাফুল ইসলাম, রাজশাহী
বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সাবেক সভাপতি প্রফেসর ড. পিএম সফিকুল
ইসলাম, রাজশাহী বরেন্দ্র গবেষণা জাদুঘরের পরিচালক প্রফেসর ড. আলী রেজা আব্দুল
মজিদ এবং নওগাঁ সরকারী কলেজের বাংলা বিভাগের প্রধান সহযোগি অধ্যাপক ড.
মোহাম্মদ শামসুল আলম। আয়োজনের দ্বিতীয় পর্বে বিকেল আড়াইটা থেকে শুরু
হবে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এ পর্বে পর্যায়ক্রমে আত্রাই উপজেলা শিল্পকলা
একাডেমী, রানীনগর উপজেলা শিল্পকলা একাডেমী এবং সবশেষে নওগাঁ জেলা
শিল্পকলা একাডেমীর উদ্যোগে সাং¯ৃ‹তিক অনুষ্ঠান পরিবেশিত হবে। এ ছাড়াও
পতিসর কাচাড়ী বাড়ি চত্বরে বসেছে গ্রামীন মেলা। এই অনুষ্ঠানমালা এবং
মেলাকে কেন্দ্র করে ইতিমধ্যেই পতিসরসহ নওগাঁ জেলা ছাড়াও পতিসর সংলগ্ন
বগুড়া এবং নাটোর জেলার গ্রামগুলো হয়ে উঠেছে উৎসবমুখর। এসব গ্রামের
প্রায় প্রতিটি বাড়িতে বেড়াতে এসেছেন দুরদুরান্ত থেকে নানা সম্পর্কের
আত্মীয় স্বজন। বাড়িতে বাড়িতে চলছে বিভিন্ন রকমের খাবারের আয়োজন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com