বুধবার, ১৮ মে ২০২২, ০৮:৫০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
মহিলা ইউপি সদস্য কতৃক সাংবাদিকদের নামে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে মানববন্ধন। বিএমএসএফ তিতাস উপজেলা শাখার আহ্বায়ক কমিটি গঠন: আহ্বায়ক সাগর- সদস্য সচিব জুয়েল। সাংবাদিকদের ১৪ দফা দাবিতে যাত্রাবাড়ীতে বিএমএসএফে’র মতবিনিময় সভা। ফুলবাড়িয়ায় বিদ্যুৎ পৃষ্ট হয়ে যুবলীগ নেতার মৃত্যু। বেপোরোয়া গতিতে গাড়ী চলায় সড়ক দুর্ঘটনায় আল আমিন (৩৭) নামে এক ভ্যান চালক নিহত। নেত্রকোনায় জাইকার বেড়িবাঁধে ভাঙ্গন, ফসলের ক্ষয়ক্ষতি। ময়মনসিংহে বিভিন্ন আয়োজনে শেখ হাসিনার স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবস পালিত। ঝালকাঠি নাগরিক ফোরামের যুব বিষয়ক সম্পাদক মিরাজের পিতৃবিয়োগে শোক প্রকাশ। সাংবাদিকদের ১৪ দফা বাস্তবায়নে ঈশ্বরদীতে বিএমএসএফ’র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত। পদ্মা সেতু দিয়ে পারাপারের জন্য টোল নির্ধারণ।

সাইয়্যিদুল আউলিয়া হযরত আবদুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সংক্ষিপ্ত জিবনী

  • আপডেট টাইম : রবিবার, ৩ এপ্রিল, ২০২২, ৭.৫৩ পিএম
  • ৫৯ বার পঠিত

 হযরত মাওলানা মুহম্মদ আবুল বাশার:

সকল প্রশংসা মহান আল্লাহ পাক উনার জন্য। নূরে মুজাসসাম রাসূলে পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি অফুরন্ত দুরুদ শরীফ ও সালাম।গাওসুল আযম হযরত শায়েখ সাইয়্যিদ মুহিউদ্দিন বড়পীর আবদুল কাদির জিলানি রহমতুল্লাহি আলাইহি ৪৭১ হিজরী ১লা রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীমি তথা সোমবার ছুবহে ছাদিকের পূর্বে ইরানের অন্তর্গত জিলান শহরে তাশরীফ আনেন। বিলাদত (জন্মগ্রহণ) শরীফের দিন থেকে তিনি রোযা রেখেছিলেন। আর সেদিন থেকেই পথহারা আত্মভোলা মানুষদেরকে সঠিক পথের সন্ধান দান করেছেন। অন্ধকার থেকে আলোর দিকে নিয়ে এসেছেন অতি অল্প বয়স মুবারক থেকেই। উনাকে দেখে সবাই মহান আল্লাহ পাক এবং উনার রসূল হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহান কুদরত মুবারকের কথা স্মরণ করতে শুরু করে দেন। তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ ১৫/১৯ পারা হিফয করেন উনার আম্মা, আমাতুল জাব্বার, উম্মুল খায়ের সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমা রহমতুল্লাহি আলাইহা উনার রেহেম শরীফের মধ্যে অবস্থানকালীন সময়ে। বাল্যকাল থেকেই উনার সাথী ছিলেন ফেরেশতাগণ। তিনি যেদিন মক্তবে গেলেন সেদিন বসার জায়গা ছিলো না। উনার সঙ্গী মানুষরূপী হযরত ফেরেশতা আলাইহিস সালাম উনাদের মধ্যে থেকে একজন বললেন, ওলীআল্লাহ উনার জন্য জায়গা ছেড়ে দাও। আর সাথে সাথে জায়গা করে দেয়া হলো। স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক তিনি এবং উনার হাবীব হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা ছিলেন উনার তরবিয়ত দাতা। তিনি যখন অন্যান্য শিশুদের সাথে মাঠে যাওয়ার জন্য বের হতেন তখন গাইবী (অদৃশ্য) আওয়াজ শুনতে পেতেন, “হে বরকতময় শিশু! আপনি আমার কাছে চলে আসুন।” এ বাণী মুবারক শুনে তিনি আর মাঠে যেতে পারতেন না। ঘরে ফিরে স্নেহময়ী মা উনাকে এ ঘটনা বলতেন। তখন উনার সম্মানিত মাতা তিনি অতি সহজেই বুঝতে পারতেন এ সন্তান সাধারণ সন্তান নন। মাহবুবে সুবহানি কুতুবে রাব্বানি গাউসুল আ’যম হযরত শায়খ সাইয়্যিদ মুহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি সম্পর্কে একটি ওয়াকিয়াঃ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে  অর্থঃ- “প্রত্যেক হিজরী শতকের প্রথমে মহান আল্লাহ পাক তিনি এই উম্মতের জন্য এমন একজন অলি আল্লাহ প্রেরণ করবেন, যিনি পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার সংস্কার করবেন, বিদয়াত বেশরা এবং শরীয়ত বিগর্হীত হারাম কাজগুলোর সংশোধন করবেন।” সেই রকম একজন খাছ ও বিশিষ্ট ওলী আল্লাহ্ হলেন মাহবুবে সুবহানি কুতুবে রাব্বানি গাউসুল আ’যম হযরত শায়খ সাইয়্যিদ মুহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি। তিনি ৪৭০ কিংবা ৪৭১ হিজরীতে পবিত্র জ্বিলান নগরে জন্মগ্রহণ করেন। জ্বিলান নগরীটি তৎকালে ইরানে অবস্থিত ছিল। বিখ্যাত ওলীআল্লাহ্ হযরত জুনাইদ বাগদাদী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার সম্বন্ধে জানা যায় যে, তিনি একদিন মোরাকাবার হালতে ছিলেন, হঠাৎ বলে উঠলেন, “উনার কদম আমার গর্দানের উপর”। এই বলে তিনি ঘাড় নত করলেন। লোকেরা কারণ জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, ৫০০ হিজরীতে হযরত আব্দুল কাদির জ্বিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি নামে একজন বিখ্যাত ওলীআল্লাহ জন্মগ্রহণ করবেন। উনার উপাধি হবে মুহিউদ্দীন। মহান আল্লাহ পাক উনার হুকুমে তিনি বলবেন, “সকল ওলীগণ উনাদের গর্দানের উপর আমার কদম।” মূলতঃ বড়পীর গাউসুল আ’যম হযরত শায়খ সাইয়্যিদ মুহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার মর্যাদা মর্তবা এত বেশী যে, আমার মতো নাফরমান অজ্ঞ মূর্খ আর বেয়াদব লোকের পক্ষে ইজ্জত সম্মান আর আদবের উচ্চ মাকামে আহরন করে উনার সম্পর্কে লিখা সম্ভব নয় তার পরেও যদি চেষ্টা করি বা এই বিষয়ে আমরা যদি একটু চিন্তা করি তবে দেখতে পাবো তিনি পিতার দিক থেকে হযরত ইমাম হাসান আলাইহিস সালাম এবং মাতার দিক থেকে হযরত ইমাম হুসাইন আলাইহিস সালাম উনার বংশধর। উনার বুযুর্গ পিতা এবং মাতা সাহেবানীর আমল আখলাক ও জীবনী মুবারক সম্পর্কে পর্যালোচনা করলে দেখতে পাবো যে, সত্যিই উনারা গাউসুল আ’যম হযরত শায়খ সাইয়্যিদ মুহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার মাতা-পিতা হবার উপযোগী। উনার পিতার নাম সাইয়্যিদ আবু সলেহ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি। (যেহেতু তিনি জিহাদ প্রিয় ছিলেন সেহেতু উনাকে জঙ্গী দোস্ত বলা হয) এবং উনার মাতার নাম উম্মুল খায়ের আমাতুল জাব্বার ফাতিমা রহমতুল্লাহি আলাইহা।হযরত আবু সলেহ্ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি যখন যুবক ছিলেন, তখন একদিন তিনি ক্ষুধার্ত অবস্থায় দজলা নদীর তীর দিয়ে যাচ্ছিলেন। তখন দজলা নদীর মধ্যে একটি ছেব ফল ভাসমান অবস্থায় দেখে ক্ষুধার তাড়নায় খেয়ে ফেললেন। তিনি রাত্রে বিছানায় শুয়ে চিন্তা করতে লাগলেন, ছেব ফল খাওয়া কতটুকু জায়েয হলো। (যদিও পবিত্র ইসলামী শরীয়তের মাসয়ালা হলো – কোন ব্যক্তি যদি ৩ দিন না খেয়ে থাকে তাহার জন্য জরুরত আন্দাজ হারাম খাওয়া হালাল নয় কিন্তু মুবাহ অর্থাৎ জায়িয) এ থেকেই বুঝা যায় যে, উনারা হালাল খাদ্যের প্রতি কতটা দৃঢ় ও মজবুত ছিলেন। কেননা ইচ্ছাকৃত এক পয়সা হারাম খেলে চল্লিশ দিন ইবাদত কবুল হয়না।পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেনঃ অর্থঃ “হে ইনসানেরা! তোমরা যমীনে হালাল খাদ্য খাও আর শয়তানের পদাঙ্ক অনুসরণ করোনা। নিশ্চয়ই শয়তান তোমাদের প্রকাশ্য শত্রু।”অতঃপর হযরত আবু সলেহ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি পরদিন সকালে দজলা নদীর তীর দিয়ে হাটতে লাগলেন, যেদিক থেকে ছেব ফলটি ভেসে আসছিল। কিছুদূর যাবার পর তিনি দেখলেন, নদীর কিনারায় একটি ছেব ফলের বাগান। বাগানের একটি গাছের একটি ডালা ফলসহ নদীর উপর ঝুলন্ত অবস্থায়। আর তার কিছুফল পানিতে ভেসে আছে। তখন তিনি নিশ্চিত হলেন যে, নিশ্চই আমি এই গাছেরই ফল খেয়েছি। অতঃপর তিনি বাগানের মালিকের বাড়ীতে গেলেন। বাড়ীতে গিয়ে উনার সাথে বাগানের মালীর সহিত দেখা হয়। মালী উনাকে অপেক্ষা করার জন্য বলে বাগানের মালিককে সংবাদ দেয়। কিছুক্ষণ পর বাগানের মালিক হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি সেখানে এসে উপস্থিত হলে হযরত আবু সলেহ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বললেন, ‘হুযূর! আমি না বলে আপনার বাগানের একটি ছেব ফল ক্ষুধার তাড়নায় নদীতে ভাসমান অবস্থায় পেয়ে খেয়ে ফেলেছি। এখন আমি তার মূল্য পরিশোধ করতে এসেছি।’ একথা শুনার পর হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি আশ্চার্য্য হলেন এবং মনে মনে ভাবলেন, ‘কত লোকইতো আমার বাগানের কত ফল খেয়েছে কিন্তু কেউই এ পর্যন্ত দাম দিতে আসেনি। নিশ্চয়ই এ যুবক একজন আল্লাহ পাক উনার ওলী হবেন।’বাগানের মালিক জিজ্ঞেস করলেন, ‘আপনার নিকট কত দেরহাম আছে।’ উত্তরে হযরত আবু সলেহ্ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বললেন, ‘দেরহাম থাকলে তো আপনার ফলই খেতাম না।’ পুণরায় জিজ্ঞেস করলেন, ‘তাহলে কি দিয়ে মূল্য পরিশোধ করবেন?’ হযরত আবু সলেহ্ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বললেন, ‘আপনার বাগানে কাজ করে ফলের মূল্য পরিশোধ করতে চাই।’ বাগানের মালিক হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বললেন, ‘বেশ কাজ করতে থাকুন।’অনেকদিন কাজ করার পর হযরত আবু সলেহ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি উনাকে বললেন, ‘হুযূর! আমার ফলের মূল্য কি এখনও পরিশোধ হয় নাই?’ হযরত আব্দুল্লাহ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বললেন, ‘হ্যাঁ হয়েছে। তবে আর একটি শর্তে আপনাকে মুক্তি দিতে পারি।’ হযরত আবু সলেহ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বললেন, ‘কি আপনার শর্ত? হযরত আব্দুল্লাহ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি বললেন, ‘আমার একটি মেয়ে আছে তাকে বিয়ে করতে হবে। মেয়েটি অন্ধ, বোবা, বধির, খঞ্জ, লুলা, কালো ও কুৎসিত।’ শুনে হযরত আবু সলেহ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ভাবলেন, ‘এ ধরনের একটি মেয়েকে বিয়ে করবো! যার কাছ থেকে খেদমত পাওয়ার পরিবর্তে উল্টো তাকেই খেদমত করতে হবে। কিন্তু পরক্ষণেই চিন্তা করলেন, দুনিয়া ক্ষণস্থায়ী, কাজেই এখন যদি তিনি ক্ষমা না করেন (বিবাহ করা ব্যতীত) তবে মহান আল্লাহ পাক উনার কাছে কি জবাব দিব’ ইত্যাদি চিন্তা করে রাজী হয়ে গেলেন। বিয়ে হয়ে গেলো।হযরত আবু সলেহ্ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বাসর ঘরে প্রবেশ করেই (হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমায়ী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনি যা বলেছেন তার বিপরীত দেখতে পেয়েই) তাড়াহুড়া করে ঘর থেকে বের হয়ে আসলেন। ঘর থেকে বের হয়েই দেখলেন, সন্মুখের রাস্তায় (ঘরের সামনে একটি ছোট রাস্তা ছিল) হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে। বললেন, হুযূর! আপনি যা বলছিলেন এখন দেখি তার বিপরীত। হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বললেন, (যা তিনি পূর্বেই বুঝতে পেরেছিলেন এমন কিছু ঘটবে) ‘বাবা ইনিই আপনার স্ত্রী। আর কাল সকালে আমি আপনার প্রশ্নের জবাব দেব।’পরদিন হযরত আব্দুল্লাহ্ সাওমাই রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হযরত আবু সলেহ্ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে বললেন, ‘বাবা, আমার মেয়েকে আমি অন্ধ বলেছি এই জন্যে, আমার মেয়ে কখনও কোন পর পুরুষকে দেখেনি; বোবা বলেছি এজন্যে সে কখনও কোন পাপের কথা মুখে আনেনি; বধির বলেছি এজন্যে সে কখনও পাপের কথা কানে শুনেনি; খঞ্জ ও লুলা বলেছি এজন্যে সে কখনও কোন পাপের পথে পা বাড়ায়নি এবং কোন পাপ কাজ স্পর্শ করেনি; কালো ও কুৎসিত এজন্যে বলেছি, তাকে কখনও কোন পর পুরুষ দেখেনি। এই কথা শুনে হযরত আবু সলেহ্ মুসা জঙ্গী দোস্ত রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার শোকরগুজার করলেন।এখানে চিন্তার বিষয়, কেমন নেককার ও পরহেযগার মুত্তাকী পিতা ও মাতার ঘরে ওলীয়ে মাদারজাত, মাহবুবে সুবহানি কুতুবে রাব্বানি গাউসুল আ’যম হযরত শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি জন্মগ্রহণ করেন।একবার লোকেরা বড়পীর গাউসুল আ’যম হযরত শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে জিজ্ঞেস করল, হুযূর! আপনি কি মুজাদ্দিদে যামান? তিনি বললেন, হ্যাঁ। তারপর বলা হলো, ‘আপনি কি সুলতানুল আরিফীন?’ তিনি বললেন, ‘হ্যাঁ।’ আবার বলা হলো, ‘আপনি কি কুতুবুল আলম?’ তিনি বললেন, ‘হ্যাঁ।’ তখন সবাই নিশ্চুপ হয়ে গেল।তিনি বললেন, ‘আরও প্রশ্ন কর। তোমরা যা বলবে আমি তারও উপরে, তারও উপরে, তারও উপরে। তোমাদের মধ্যে অনেক লোক আছে, আমি যে মাকামে অবস্থান করি, তারা তার কোন খবরই রাখেনা।’ সে সমস্ত মাকামগুলির বর্ণনা পরবর্তীতে হযরত মুজাদ্দিদে আলফে সানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ‘মকতুবাত শরীফ’-এ উল্লেখ করেছেন।মোটকথা হযরত নবী-রসুল আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের পর একজন মানুষের পক্ষে যত মাকাম অর্জন করা সম্ভব মহান আল্লাহ পাক তিনি মাহবুবে সুবহানি কুতুবে রাব্বানি গাউসুল আ’যম হযরত শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে তা দিয়েছেন। এটা সত্যিই উনার জন্য এক বিশেষ মর্যাদা (বলা হয়ে থাকে মহান আল্লাহ পাক উনার এমন ওলী কমই অতিবাহিত হয়েছেন, যাঁরা গাউসুল আ’যম হযরত শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার রূহানী তাওয়াজ্জুহ্ বা নিছবত হাসিল করেননি।)গাউসুল আ’যম হযরত শায়খ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার বয়স যখন প্রায় আঠারো বৎসর ছিলো, তখন একবার তিনি আরাফার দিবসে গরু নিয়ে নিজের জমি চাষ করতে যাচ্ছিলেন। এমন সময় সেই গরুটি উনার দিকে ফিরে বলল.অর্থঃ “হে আব্দুল কাদির রহমতুল্লাহি আলাইহি! এই কাজের জন্য আপনাকে সৃষ্টি করা হয়নি। এবং এই কাজের জন্য আপনাকে আদেশ মুবারক করা হয়নি।”এই ঘটনায় তিনি ভয় পেয়ে বাড়িতে ফিরে গেলেন। এতদিন পর্যন্ত স্থানীয় মক্তবে যা কিছু শিখেছিলেন তার চেয়েও অনেক বেশী কিছু শিক্ষার জন্য তিনি বাগদাদ যেতে মনস্ত করলেন। (তিনি মাতৃগর্ভ থেকে অধিকাংশ মতে আঠার পারার হাফিয হয়েই জন্মগ্রহণ করেন। অতঃপর অতি শৈষবেই পূর্ণ পবিত্র কুরআন শরীফ হিফজ করেন)হযরত শায়খ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি বাগদাদে পৌঁছিয়াই তৎকালীন বিশ্বের সর্বশ্রেষ্ঠ মাদ্রাসা নিযামিয়াতে ভর্তি হন। দুনিয়ার বিশিষ্ট ওলামায়ে কিরামগণ এই মাদ্রাসায় তা’লীম দান করতেন। এই শ্রেষ্ঠ ওলামায়ে কিরামগণ উনাদের নিকটেই হযরত গাউসুল আ’যম শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি তাফসীর শরীফ, হাদীছ শরীফ, ফিকাহ শরীফ, দর্শন, সাহিত্য, ইতিহাস, তর্কবিদ্যা, ইলমে কালাম, ইলমে উরূজ ইত্যাদি প্রত্যেকটি বিষয়ে খোদা প্রদত্ত তীক্ষ্ম মেধা শক্তি বলে মাত্র নয় বৎসরের মধ্যেই তিনি বুৎপত্তি লাভ করেন। তিনি বাগদাদে শুধু কিতাবী ইলমই অর্জন করেন নাই। সঙ্গে সঙ্গে তিনি তৎকালীন বাগদাদের শ্রেষ্ঠ ও বিখ্যাত আউলিয়া কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিমগণ উনাদের ছোহবতও ইখতিয়ার করেন। কারণ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে উল্লেখ আছে-অর্থ- “ইলম দুই প্রকার। একটি হলো ক্বল্বি ইলম যা ফায়দাজনক বা উপকারী বিদ্যা। অপরটি হলো যবানী ইলম যা মহান আল্লাহ পাক উনার তরফ থেকে বান্দার জন্য দলীলস্বরূপ।”উপরোক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার ব্যাখ্যায় হযরত ইমাম মালিক রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার থেকে বর্ণিত আছে যা হযরত মুল্লা আলী ক্বারী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার ‘মিশকাত শরীফ’ কিতাব উনার শরাহ ‘মিরকাত শরীফ’ কিতাব উনার মধ্যে বর্ণনা করেন,.অর্থঃ “যে শুধু ফিকাহ্কে গ্রহণ করল কিন্তু তাছাউফ গ্রহণ করলনা সে গুনাহ্গার; আর যে শুধু তাছাউফ দাবী করে এবং শরীয়তকে অস্বীকার করে সে কাফির; আর যিনি দু’টিই অর্জন করলেন তিনি হলেন মুহাক্কিক।”তাই মাদ্রাসার শিক্ষা সমাপ্ত করে ইলমে বাতিন অর্জন করার জন্য হযরত গাউসুল আ’যম, শায়খ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ব্যকুল হয়ে উঠলেন। তিনি হযরত শায়েখ আবুল খায়ের হামদান বিন মোছলেম দাব্বান রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার দরবারে আসা-যাওয়া করতে লাগলেন এবং কঠোর রিয়াজতের মাধ্যমে তাসাউফ শিক্ষায় নিমগ্ন হলেন। হযরত গাউসুল আ’যম শায়খ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি হতে বর্ণিত আছে যে তিনি বলেন, তিনি দীর্ঘ পচিঁশ বৎসরকাল ইরাকের নির্জন বন-জঙ্গলে, মাঠে-প্রান্তরে এবং ভগ্ন প্রায় বাড়ী-ঘরে কাটিয়েছেন। তিনি বলেন, আমি যখন ইরাকের জঙ্গলে সাধনা বা রিয়াজত করতাম তখন একদা আমার খুব পানির তৃষ্ণা পেলো, এমন সময় মহান আল্লাহ পাক উনার কুদরতে আকাশে ঘন কালো মেঘের ছায়া নেমে এলো এবং কিছুক্ষনের মধ্যেই বৃষ্টি আরম্ভ হল। আমি তৃপ্তিভরে পানি পান করলাম। এরপর আকাশে একটা আলোকপাত দেখা দিলো, যা সমস্ত আকাশকে আলোকিত করে ফেললো। অতঃপর ঐ আলোকপিন্ড হতে আওয়াজ এলো- হে আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি! আমি আপনার মহান আল্লাহ পাক। আমি আপনার ইবাদত-বন্দিগীতে সন্তুষ্ট হয়ে সমস্ত হারামগুলিকে আপনার জন্য হালাল করে দিলাম। এটা ইবলিশের ধোকাবাজি বা প্রতারনা বুঝতে পেরে সাথে সাথে পড়লেন, “হে বিতাড়িত শয়তান! দূর হয়ে যা এখান থেকে”।এই ওয়াকেয়া দ্বারা বুঝা যায়, হযরত গাউসুল আ’যম শায়খ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি কত বড় সুক্ষ্মদর্শী ছিলেন। কারণ যা হারাম হওয়ার তাহা হারাম হিসাবে সাব্যস্ত হয়ে গিয়েছে। আর যা হালাল হওয়ার তাহা হালাল হিসাবেই সাব্যস্ত হয়ে গিয়েছে। কেননা, পবিত্র ওহী মুবারক বন্ধ হয়ে গিয়েছে। অথচ আজকাল এক শ্রেণীর ফকীর নামধারী ভন্ড ব্যক্তিরা বলে থাকে যে, উপরের মাকামে উঠলে ইবাদতের প্রয়োজন হয়না। তারা পবিত্র কুরআন শরীফ উনার নিম্মোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার ভুল ব্যাখ্যা দেয়।অর্থঃ- “ইয়াক্কীন বা মৃত্যু আসা পর্যন্ত তোমরা ইবাদত করতে থাক। ভন্ডরা ইয়াক্কিন এর শাব্দিক অর্থ বিশ্বাস ধরে নিয়েছে। ইবাদত-বন্দেগীতে মোটামুটি বিশ্বাস এসে গেলে তাদের মতে আর ইবাদত না করলেও চলবে।”অথচ সমস্ত হযরত মোফাচ্ছিরে কিরামগণ উনারা একমত যে এখানে ইয়াক্কীন শব্দের অর্থ হচ্ছে মৃত্যু। তাছাড়া যিনি সকল হযরত নবী-রসুল আলাইহিমুস সালাম উনাদের রসুল, যিনি সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, হাবীবুল্লাহ, হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিও জীবনের শেষ পর্যন্ত এত বেশী যিকির-আযকার ও ইবাদত-বন্দিগী করতেন যে, নামায পড়তে পড়তে হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পা মুবারক ফুলে যেত। হযরত ছাহাবা-ই-কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুগণ উনাকে জিজ্ঞাসা করতেন, ইয়া রসূলাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! মহান আল্লাহ পাক তিনি তো আপনার উপর ইবাদত ফরজ করেন নাই আর নিষ্পাপ বেগুনা করেই জমিনে প্রেরন করেছেন। তবে আপনি কেনো ইবাদত করেন ইবাদতে এত কষ্ট করেন? হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, “আমি কি মহান আল্লাহ পাক উনার শোকরগুজারি বান্দা হবনা?”তাই মৃত্যু পর্যন্ত মানুষকে ইবাদত-বন্দিগী করে যেতে হবে। এবং যিনি যত মর্যদাশীল হবেন উনার ভয়ভীতিও তত বেশী হবে এবং ইবাদত ও বেড়ে যাবে। হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খালেছ অনুসরণকারী হিসাবে হযরত গাউসুল আ’যম শায়েখ হযরত সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকেই আমরা দেখতে পাই।মহান আল্লাহ পাক তিনি হযরত আউলিয়া-ই-কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিগণ উনাদেরকে অনেক বুযূর্গী বা কারামত দান করেছেন। যা পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যেও উল্লেখ করেছেন। যেমন হযরত মরিয়ম আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র হুযরা শরীফ উনার মধ্যে মৌসুম ব্যতীত ফল ফলাদি পাওয়া যেতো যা আসতো জান্নাত থেকে। আর হযরত সোলায়মান আলাইহিস সালাম উনার প্রধানমন্ত্রী হযরত আসাফ বিন বরখীয়া রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি একজন ওলীআল্লাহ ছিলেন। তিনি রানী বিলকিস আলাইহাস সালাম উনার সিংহাসন চোখের পলকে হযরত সোলায়মান আলাইহিস সালাম উনার দরবার শরীফ উনার মধ্যে পেশ করেছিলেন।উপরোক্ত দু’টি ঘটনা সম্পর্কেই মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফ উনার ‘পবিত্র সূরা ইমরান শরীফ’ উনার ৩৭ নং পবিত্র আয়াত শরীফ এবং ‘সূরা নমল শরীফ’ উনার ৩৮, ৩৯ ও ৪০ নং পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে উল্লেখ করেছেন।আর পবিত্র আকাইদ শরীফ উনার কিতাবেও উল্লেখ করা হয়েছে।অর্থঃ “মহান আল্লাহ পাক উনার অলিয়াল্লাহগন উনাদের কারামত সত্য”।আর কিতাবে উল্লেখ করা হয়েছেاঅর্থঃ মহান আল্লাহ পাক তিনি হযরত আউলিয়া রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাদেরকে এমন ক্ষমতা দিয়েছেন যে, ইচ্ছে করলে উনারা নিক্ষেপীত তীরকে লক্ষ্যস্থানে পৌঁছার পূর্বেই আবার তা ফিরিয়ে আনতে পারেন।সেই কারণেই আমরা প্রত্যেক আল্লাহ্ওয়ালাগণ উনাদের জীবনীতে কমবেশী কারামত দেখতে পাই। তদ্রুপ হযরত গাউসুল আ’যম শায়খ হযরত সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার জীবনেও আমরা উনার অসংখ্য কারামত দেখতে পাই। উনার দোয়ার বরকতে অনেক নেক সন্তান জন্মগ্রহণ করেছে। যাঁরা পরবর্তীতে অনেক উঁচু পর্যায়ের ওলীআল্লাহ হয়েছেন। উনাদের মধ্যে হযরত শায়খ শিহাবুদ্দীন সোহ্রাওয়ার্দী রহমতুল্লাহি আলাইহি এবং মহীউদ্দীন হযরত ইবনুল আরাবী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার নাম মুবারক উল্লেখযোগ্য। ফুরফুরা শরীফ উনার পীর ছাহেব হযরত আবু বকর ছিদ্দীক ফুরফুরাবি রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে একবার কিছু লোক মাহবুবে সুবহানি কুতুবে রাব্বানি হযরত গাউসুল আ’যম শায়খ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার দীর্ঘ ১২ বৎসর পর ডুবে যাওয়া একটি বর যাত্রীদলকে নতুন করে বাঁচানোর কারামতের সত্যতা সম্পর্কে জিজ্ঞাসা করল। জবাবে তিনি বলেন, অবশ্যই হযরত মাহবুবে সুবহানি কুতুবে রাব্বানি গাউসুল আ’যম শায়খ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার এই কারামত বিশ্বাস করেন। কেননা ওলীআল্লাহগণ উনাদের কারামত সত্য। তাই হযরত গাউসুল আ’যম শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কারামত পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের দলীল দ্বারাই প্রমানিত।আপনারা অনেকের জানা নাই হয়তো যে প্রত্যেক চন্দ্রমাস, একজন আরব মেহমানের ছুরতে মাহবুবে সুবহানি কুতুবে রাব্বানি হযরত গাউসুল আ’যম শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার নিকট দেখা করত এবং মাসের মধ্যে ভাল-মন্দ কি ঘটনা ঘটবে তা উনাকে জানাত। হিজরী ৫৬০ সালের পবিত্র রমযান শরীফ মাসে এসে উনাকে বিদায় সম্ভাষন জানিয়ে গেল। অর্থাৎ পরবর্তী রমযান শরীফ মাস পর্যন্ত তিনি এই নশ্বর দুনিয়ায় থাকবেন না।‘বেহেজাতুল আসরার’ নামক কিতাবে হযরত শায়খ শাহাবুদ্দীন সোহ্রাওয়াদ্দী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, হযরত গাউসুল আ’যম শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি ৫৬০ হিজরীর রবিউল আউয়াল মাস হতে কঠিন রোগে আক্রান্ত হন।‘তাশারেখে আওলিয়া’ নামক কিতাবে শায়খ আব্দুল ফতেহ্ বাগদাদী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বলেন, ইয়াওমুল আহাদি বা রোববার দিবাগত রাত্রে অর্থাৎ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীমি বা সোমবার রাত্রে হযরত গাউসুল আ’যম শায়েখ সাইয়্যিদ মহিউদ্দীন আব্দুল কাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি গোসল করেন। গোসলান্তে এশার নামায পড়ে তিনি উম্মতে হাবীবীগণ উনাদের গুনাহ্খাতা মাফের জন্য ও তাদের উপর খাছ রহ্মতের জন্য দোয়া করলেন। এরপর গায়েব হতে আওয়াজ আসল, “হে প্রশান্ত নফ্স, আপনি প্রসন্ন ও সন্তুষ্টচিত্তে নিজ প্রতিপালকের দিকে প্রত্যাবর্তন করেন। আপনি আমার নেক্কার বান্দার মধ্যে শামিল হয়ে যান এবং বেহেশ্তে প্রবেশ করেন।” এরপর তিনি কালিমা পাঠ করিয়া তাআজ্জাজা (অর্থ বিজয়ী হওয়া) উচ্চারণ করতে লাগলেন এবং তিনি আল্লাহ আল্লাহ আল্লাহ বললেন। এরপর জিহ্বা তালুর সাথে লেগে গেল। এইভাবে ৫৬১ হিজরী সনের (১১১৬ ঈসায়ী) রবীউছ ছানী মাসের ১১ তারিখে মাহবুবে সুবহানী, কুতুবে রব্বানী, আওলাদে রসূল হযরত গাউসুল আ’যম শায়েখ সাইয়্যিদ মুহিউদ্দীন আব্দুল ক্বাদির জিলানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার মহান দরবার-এ প্রত্যাবর্তন করলেন। (ইন্না লিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাইহি রজিউন(বাহজাতুল আসরার, আখবারুল আখইয়ার,তাযকিরাতুল আউলিয়া)হযরত মুজাদ্দিদে আযম আলাইহিস সালাম উনার উসিলায়  সম্মানিত রমযান শরীফের ফজিলত দান করুন।(আমিন)

 

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com