বৃহস্পতিবার, ২৯ জুলাই ২০২১, ১১:৫৫ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
ফাইজার ও অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ৩টি ডোজে করোনা মোকাবেলায় আরও বেশি কার্যকর বঙ্গোপসাগরে ইঞ্জিন বিকল হয়ে ভাসতে থাকা ১৪ জেলেকে জীবিত উদ্ধার অস্ট্রেলিয়ার সিডনিতে লকডাউন বাড়ল আরও ১ মাস ভারতে ঘুমন্ত অবস্থায় ট্রাকের ধাক্কায় মারা গেলো ১৮ জন অভিবাসী শ্রমিক আগামী রোববার ও বুধবার ব্যাংক বন্ধ থাকবে ভ্রাম্যমাণ আদালতের অভিযানে ২৪ নির্মাণাধীন ভবন ও বাসাবাড়িকে ৩ লাখ ৩১ হাজার ৩০০ টাকা জরিমানা বিএনপি’র আমলেই শিক্ষাঙ্গনে সন্ত্রাস-নৈরাজ্য ছিল :ড. হাছান মাহমুদ শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ‘টুঙ্গিপাড়ার মিয়াভাই’ সিনেমা প্রদর্শনের নির্দেশ বিজ্ঞাপনে তাসনুভা শিশির  দেশে করোনাভাইরাসে গত ২৪ ঘন্টায় মারা গেছেন ২৩৭ জন

দক্ষিণ চিন সাগরে আমেরিকার সামরিক মহড়া

  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ১৭ জুন, ২০২১, ৯.০৬ এএম
  • ৪৩ বার পঠিত

সদ্য সমাপ্ত জি ৭ বৈঠকের মঞ্চেই শোনা গিয়েছিল সংঘাতের সুর। দক্ষিণ চিন সাগরে আমেরিকার সামরিক মহড়া শুরু হওয়ায় সেই সুর আরও চড়বে বলে মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। এমনিতে দক্ষিণ চিন সাগরকে কেন্দ্র করে দুই দেশের স্নায়ুযুদ্ধ বরাবরই তুঙ্গে। তার উপরে আমেরিকার সেনা জানিয়েছে, পরমাণু শক্তিচালিত রণতরী ইউএসএস রোনাল্ড রেগানের নেতৃত্বে তাদের বিমানবাহী নৌবহর প্রবেশ করেছে দক্ষিণ চিন সাগরে। যদিও আমেরিকার মতে, এটি ‘নিয়মমাফিক মহড়া’। কিন্তু চিন বরাবরই বলে এসেছে, এই ধরনের মহড়া দু’দেশের মধ্যে শান্তি ও স্থিতাবস্থার পরিপন্থী।

 এক বিবৃতি দিয়ে আমেরিকার সেনাবাহিনী বলেছে, ‘‘দক্ষিণ চিন সাগরের উপরে সামরিক সুরক্ষা সংক্রান্ত অনুশীলন শুরু করেছে আমেরিকা। তার মধ্যে রয়েছে সমুদ্রপথে অভিযান চালানোর মহড়া ও সেনা ও বায়ুসেনার মধ্যে কৌশলগত বোঝাপড়ার প্রশিক্ষণ। এটি সেনার নিয়মমাফিক মহড়ার অংশ।’’ বস্তুত, গত কয়েক বছরে দক্ষিণ চিন সাগরে ঘন ঘন অনুশীলন চালাচ্ছে পেন্টাগন। যা প্রতিপক্ষের শক্তি প্রদর্শনের ছল বলে দাবি চিনের। বিপরীতে আমেরিকারও পুরনো অভিযোগ, ওই অঞ্চলে বেআইনি ঘাঁটি তৈরি করে আধিপত্য বিস্তারের চেষ্টা করছে বেজিং। সদ্য শেষ হওয়া জি ৭ বৈঠকে সে প্রসঙ্গ ওঠায় ফের এক দফা সংঘাতের আবহ তৈরি হয়েছে।

প্রকৃতপক্ষে এই আবহ তৈরিতে চিনের ভূমিকাও কম কিছু না। আমেরিকা, ব্রিটেন, ফ্রান্স, জার্মানি, জাপান, কানাডা ও ইটালির মতো জি ৭-ভুক্ত দেশগুলির জোটকে আক্রমণ করে দিন দু’য়েক আগেই চিন বলেছে, ‘‘ছোট একটি গোষ্ঠী সারা বিশ্বকে চালনা করতে পারে না।’’ যার পর পরই গত কাল ন্যাটো প্রধান জেন্স স্টোলটোনবার্গ বলেছেন, ‘‘চিনের উত্থান আমাদের নিরাপত্তার জন্য যে চ্যালেঞ্জ তৈরি করছে, জোট হিসেবে তার মোকাবিলা করা দরকার।’’ ন্যাটো প্রধানের বক্তব্য, বেজিং অত্যন্ত আগ্রাসীভাবে পারমাণবিক অস্ত্রের ভাঁড়ার তৈরির পথে এগোচ্ছে। এবং সাইবার যুদ্ধের ক্ষমতা বাড়াচ্ছে যা আন্তর্জাতিক স্থিতিশীলতার পক্ষে ক্ষতিকর। ন্যাটোভুক্ত দেশগুলির বৈঠকে আমেরিকার প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনও জানান, চিনের একাধিপত্য ও ক্রমবর্ধমান সামরিক শক্তির বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে হবে। আজ চিন ন্যাটোর বক্তব্যে তীব্র আপত্তি জানিয়ে বলেছে, ‘‘সব কথাকেই অতিরঞ্জিত করে চিনের হুমকি বলে দেগে দেওয়া বন্ধ হওয়া প্রয়োজন। এবং চিনের বৈধ স্বার্থ ও আইনি অধিকার প্রয়োগের প্রসঙ্গ এলেই রাজনীতি করে সংঘাতের ভুয়ো পরিস্থিতি সৃষ্টি করা বন্ধ হোক।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com