বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১, ০৯:২৪ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
দেশে এ পর্যন্ত ৪৭ লাখ ৭০ হাজার ৯৫৩ জন করোনা টিকা নেয়ার জন্য নিবন্ধন করেছেন ফুলবাড়ীতে নব নির্বাচিত পৌর মেয়রকে ব্যাবসায়ী সমিতির সংবর্ধনা প্রদান নওগাঁয় প্রতিবন্দীদের মাঝে হুইল চেয়ার বিতরণ বাংলাদেশে করোনা মহামারী পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রণে : প্রধানমন্ত্রী কুমিল্লা-সিলেট আঞ্চলিক মহাসড়ক দূর্ঘটনায় শিশু পুত্র নিহত; পিতা সহ আহত- ৩ দেবীদ্বারে ইজিবাইক চালাতে গিয়ে ৬ বছরের এক শিশুর মৃত্যু স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ফাঁস দিয়ে মহিলা রোগীর রহস্যজনক মৃত্যু ভাসানচর গেলেন আরও ১ হাজার ৭৫৯ জন রোহিঙ্গা বিশ্বে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা ২৫ লাখ ৭১ হাজার ৭৯৪ জন বিএনপি জীবন্ত মানুষকে আগুনে পুড়িয়ে মারে আর এখন কৃত্রিম দরদ দেখায়: সেতুমন্ত্রী

মানুষ অনেক আগেই জিয়াউর রহমানের মুক্তিযুদ্ধের খেতাব বাতিল করত: প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী

  • আপডেট টাইম : মঙ্গলবার, ১৬ ফেব্রুয়ারী, ২০২১, ৫.১৩ পিএম
  • ১৮ বার পঠিত

নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেছেন, সুযোগ পেলে বাংলার মানুষ অনেক আগেই জিয়াউর রহমানের মুক্তিযুদ্ধের খেতাব বাতিল করত।
তিনি বলেন, জাতীয় মুক্তিযোদ্ধা কাউন্সিল কর্তৃক জিয়াউর রহমানের মুক্তিযুদ্ধের খেতাব বাতিলের প্রস্তাবটি যথার্থ। বাংলার মানুষ সুযোগ পেলে অনেক আগেই সেটি বাতিল করত।
নৌপরিবহন প্রতিমন্ত্রী আজ মঙ্গলবার জাতীয় প্রেসক্লাবে বাংলাদেশ গণ আজাদী লীগ আয়োজিত ‘মুজিব শতবর্ষে স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী’ শীর্ষক আলোচনা সভায় এসব কথা বলেন।
খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, হাইকোর্ট-সুপ্রিমকোর্ট সংবিধানের পঞ্চম সংশোধনী অবৈধ ঘোষণা করেছে। পঞ্চম সংশোধনী অবৈধ হওয়ায় জিয়ার শাসনামল অবৈধ। তার সকল কার্যক্রম অবৈধ। তার সকল কর্মকান্ড রাষ্ট্রবিরোধী। তিনি অবৈধ কার্যক্রম পরিচালনা করেছেন। মুক্তিযুদ্ধবিরোধীদের লালন করেছেন। জিয়ার মুক্তিযুদ্ধের খেতাব রাখতে দেয়া যায়না।
তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ও মুক্তিযোদ্ধাদের বাদ দিয়ে যারা দেশ চালাতে চেয়েছিলেন তারা ব্যর্থ হয়েছেন। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা মধ্যম আয়ের দেশে উন্নীত হয়েছি। উন্নত দেশের স্বপ্ন দেখছি। শেখ হাসিনার নেতৃত্বে আমরা বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়ে তুলতে সক্ষম হব।
খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ১৫ আগস্ট হত্যাকান্ডে জিয়াউর রহমান বেনিফিসিয়ারি। পঁচাত্তর পরবর্তীতে তিনি জাতির পিতার খুনিদের লালন পালন করেছেন। বঙ্গবন্ধু হত্যাকান্ডের বিচার যাতে না হয়; সে ইনডেমনিটি অধ্যাদেশটি আইনে পরিণত করেছিলেন জিয়াউর রহমান। বঙ্গবন্ধু খুনিদের সংসদে এনেছেন জিয়া। এরশাদ, খালেদা জিয়াও সে পথে চলেছেন।
গণ আজাদী লীগের সভাপতি অ্যাডভোকেট এস কে সিকদারের সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখেন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক।
এছাড়াও আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় নেতা মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া বীর বিক্রম, তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা. মুরাদ হাসান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আবু আহমেদ মন্নাফী প্রমুখ অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com