বুধবার, ২০ জানুয়ারী ২০২১, ০২:৫৫ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
তালতলীতে এশিয়ান টিভির প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালিত যুক্তরাষ্ট্রের ওয়াশিংটন ডিসিতে জো বাইডেন প্রেসিডেন্ট হিসাবে অভিষিক্ত যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প এর বিদায়ী ভাষণ মায়ের দেওয়া সম্পত্তি আমার রক্তে রইলনা লিখে পিতার আত্মহত্যা রাজধানীতে মাদক বিরোধী অভিযান চালিয়ে মাদকদ্রব্যসহ ৫৮ জন গ্রেফতার অজ্ঞাত মৃত ব্যক্তির পরিচয় জানা প্রয়োজন অস্ট্রেলিয়াকে হারিয়ে জয় পেল ভারত মহামারির বিরুদ্ধে লড়াইয়ে সামনের সারিতে থাকা কর্মীরাই আগে টিকা পাবেন : স্বাস্থ্যমন্ত্রী আগামী ২৮ ফেব্রুয়ারি ৩১ পৌরসভার ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে চট্টগ্রাম সিটি নির্বাচনকে সামনে রেখে ট্রাফিক বিভাগ ও ক্রাইম বিভাগের কঠোর নজরদারি

ঢাকাবাসীর নতুন বছর ২০২১

  • আপডেট টাইম : শুক্রবার, ১ জানুয়ারী, ২০২১, ১০.১৭ এএম
  • ২০ বার পঠিত

পুলিশের বিধিনিষেধ  ছিল। তারপরও বর্ষবরণের উদযাপনে মেতে উঠেছে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশ। ঘড়ির কাঁটা রাত ১২টা স্পর্শ করামাত্রই ‘হ্যাপি নিউ ইয়ার’ চিৎকার ছড়িয়ে পড়েছে দিকে দিকে। একইসঙ্গে বাইরে জমায়েত না করতে পারলেও বাড়ির ছাদ থেকে ছুঁড়ে দেওয়া আতশবাজির আলোকচ্ছটায় রাঙিয়ে শুরু হলো গ্রেগরিয়ান বর্ষপঞ্জির নতুন বছর ২০২১। একইসঙ্গে ঢাকার আকাশে উড়তে দেখা গেছে ফানুসও।

খ্রিষ্টীয় এই নববর্ষকে ঘিরে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) পক্ষ থেকে ছিল বিভিন্ন ধরনের বিধিনিষেধ। আতশবাজি ফোটানোতেও ছিল নিষেধাজ্ঞা। তবে সেই নিষেধাজ্ঞা মানেনি কেউ। রাজধানীর টিকাটুলি থেকে শুরু করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকা, তেজগাঁও, ধানমন্ডি, গুলশান, বনানী, উত্তরা— সবখানেই আকাশ আলোকিত হয়েছে আতশবাজির আলোয়। তার শব্দেও ২০২১ সাল জানান দিয়েছে— আমি এসেছি।

নববর্ষের উদযাপন অনেকটাই সীমাবদ্ধ ছিল ঘরে। বাইরে বের হতে না পেরে মানুষজন রাত ১২টা বাজার আগে থেকেই জড়ো হতে থাকেন বাড়ির ছাদে ছাড়ে। নতুন বছর শুরু হতে না হতেই শুরু হয় তাদের উদযাপন। আতশবাজি, ফানুসের সঙ্গে সঙ্গে কোথাও কোথাও সাউন্ডবক্সে বেজেছে গানও।

বর্ষবরণের এই রাত তথা ‘থার্টি ফার্স্ট নাইট’কে ঘিরে অবশ্য ব্যাপক বিধিনিষেধ আরোপ করেছিল ডিএমপি। সন্ধ্যার পর থেকে সীমিত করা হয় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় এলাকায় যানচলাচল। গুলশান-বনানী এলাকায় নেওয়া হয় কড়া নিরাপত্তা। এসব এলাকায় রাত ৮টার পর বহিরাগত প্রবেশ রীতিমতো নিষিদ্ধ করা হয়। এছাড়া বিকেল ৫টার পর প্রবেশ নিষিদ্ধ করা হয়েছিল হাতিরঝিল এলাকায়। সন্ধ্যা ৬টার পর রাজধানীর সব বার এবং ৮টার পর ফাস্টফুডের দোকান বন্ধ করতে বলা হয়। রাত ৯টার দিকে রাজধানীর বিভিন্ন এলাকায় টহল পুলিশকে এলাকার মুদি দোকানগুলোও বন্ধ করতে বলতে দেখা যায়।

ডিএমপি’র বিধিনিষেধে বলা হয়, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে সীমিত আকারে আবাসিক হোটেলগুলো নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠান আয়োজন করতে পারবে। তবে কোনো ডিজে পার্টি আয়োজন করা যাবে না। এছাড়া ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যা ৬টা থেকে ১ জানুয়ারি ভোর ৬টা পর্যন্ত ঢাকা মহানগরীর আবাসিক হোটেল, রেস্তোরাঁ, জনসমাবেশ ও উৎসবস্থলে কোনো ধরনের লাইসেন্স করা আগ্নেয়াস্ত্রও বহন না করতে অনুরোধ করা হয়।

শেষ পর্যন্ত ডিএমপি’র বিধিনিষেধের কিছু কিছু পালন করা হলেও ঢাকাবাসী ঘরোয়া আয়োজনের মাধ্যমে অনেক বিধিনিষেধেরই তোয়াক্কা করেনি। কালাচাঁদপুর এলাকার বাসিন্দা রবিউল হাসান যেমন বলছেন, বিধিনিষেধ আরোপটাও যৌক্তিক হতে পারত। নতুন বছর বরণ করার উচ্ছ্বাস সবার মধ্যেই থাকে। করোনা পরিস্থিতিতে এমনিতেই কেউ বড় কোনো আয়োজন করছে না। ফলে বাসাবাড়ির মধ্যে থেকে যেটুকু উৎসব, সেটুকু করা যেতেই পারে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com