বুধবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২০, ০১:১৭ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::

নির্বাচন বানচাল করতে বাসে আগুন দিয়েছে বিএনপি পুলিশের দাবি

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৪ নভেম্বর, ২০২০, ১২.৪৭ এএম
  • ১৪ বার পঠিত

ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনকে বানচালসহ মানুষকে পুড়িয়ে হত্যার মাধ্যমে দেশে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টির চেষ্টায় বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটিয়েছেন বলে ঢাকা মহানগর পুলিশ দাবি করেছে।

গত বৃহস্পতিবার ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) পল্টন, মতিঝিল, শাহবাগ, ভাটারা, বংশাল ও উত্তরা পূর্ব থানায় মোট নয়টি স্থানে ১০টি বাসে আগুন দিয়েছে দুর্বৃত্তরা। এ ঘটনায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মোট নয়টি মামলা দায়ের করেছে পুলিশ।

এর মধ্যে বাসে পেট্রল বোমা বিস্ফোরণ ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় বিশেষ ক্ষমতা আইনে মতিঝিল থানায় দুটি মামলা করেছে পুলিশ। একটি মামলার এজাহারে বলা হয়েছে, ৪১ জন এজাহার নামীয় আসামিসহ অজ্ঞাতনামা আরো বিএনপি ও এর অঙ্গ সংগঠনসহ ২০ দলীয় জোটের নেতাকর্মীগণ কেন্দ্রীয় নেতাদের নির্দেশে গত বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত ঢাকা-১৮ আসনের জাতীয় সংসদের উপনির্বাচনকে বানচাল করার জন্য আসামিগণ একত্রিত হয়ে মতিঝিল থানাধীন বাংলাদেশ ব্যাংক কলোনির মেইন গেটের বিপরীত পাশে ফাঁকা রাস্তায় ওপর থাকা অগ্রণী ব্যাংকের কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের বহনে  নিয়োজিত স্টাফ বাসের স্টাফদের আগুনে পুড়িয়ে মারার জন্য গাড়িতে আগুন লাগায়। কিন্তু গাড়িতে থাকা স্টাফরা দ্রুত বের হয়ে প্রাণে বেঁচে যান। পরে সেখানে থাকা বিএনপির নেতাকর্মীরা পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়। আসামিরা পরস্পর যোগসাজসে ষড়যন্ত্র করে হত্যার উদ্দেশ্যে গাড়িতে আগুন দিয়ে পেনাল কোড আইনের ১৪৩, ৪৩৫ ও ৩০৭ ধারায় অপরাধ করেছে।

গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় পল্টন মডেল থানায়ও পুলিশ বাদী হয়ে দুটি মামলা করেছে। ৩৮ জনকে আসামি করে দায়ের করা একটি মামলার এজাহারে পুলিশ বলেছে, ‘ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনকে বানচালসহ দেশে অরাজক পরিস্থিতি সৃষ্টির জন্য গত বৃহস্পতিবার দুপুর ২টা ৫ মিনিটে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এলাকায় ভিক্টর ক্লাসিকের একটি বাসে যাত্রীদের হত্যার উদ্দেশ্যে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীরা আগুন ধরিয়ে দেয়। সে সময় রাস্তায় চলাচলরত লোকজন আতঙ্কগ্রস্ত হয়ে দিকবিদিক ছোটাছুটি করতে থাকে। এমন খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে হাজির হয়। পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে বিএনপির নেতাকর্মীরা বিভিন্ন স্লোগান দিতে দিতে গলিপথে দৌঁড়ে পালিয়ে যায়

ডিএমপির গণমাধ্যম ও গণসংযোগ শাখার উপকমিশনার (ডিসি) ওয়ালিদ হোসেন বলেন, ‘পল্টন, মতিঝিল, শাহবাগ, ভাটারা, বংশাল ও উত্তরা পূর্ব থানায় বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনায় মোট নয়টি মামলা দায়ের হয়েছে। বিস্ফোরক ও বিশেষ ক্ষমতা আইনে এসব মামলা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার রাতে মতিঝিল জোনের সহকারী পুলিশ কমিশনার (এসি) জাহিদুল ইসলাম জাহিদ বলেছিলেন, ‘বাসে আগুন দেওয়ার ঘটনায় মতিঝিল ও পল্টন মডেল থানার চারটি মামলায় সাতজনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

শুক্রবার সকালে শাহবাগ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মামুন অর রশিদ বলেন, ‘শাহবাগ থানায় দায়ের হওয়া দুটি মামলায় ছয়জনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

ভাটারা থানার ওসি মোক্তারুজ্জামান দুপুর ১২টার বলেন, ‘বাস পোড়ানোর ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। ৯০ জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাত অনেককে আসামি করা হয়েছে।’

বংশাল থানার ওসি শাহীন ফকির বলেন, ‘বাসে অগ্নিসংযোগের ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। গ্রেপ্তার করা হয়েছে দুজনকে।’

ডিএমপির উত্তরা বিভাগের ডিসি মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ‘উত্তরায় গাড়ি পোড়ানোর ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে।

গত বৃহস্পতিবার ঢাকা-১৮ আসনের উপনির্বাচনের ভোটগ্রহণ ছিল। ভোটগ্রহণের মধ্যেই বেলা ১১ থেকে ১২টার ভেতরে উত্তরার ৮ নম্বর ও ১২ নম্বর সেক্টরের দুটি কেন্দ্রে ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে।

দুপুরে উত্তরা বিভাগের ডিসি  মো. শহিদুল্লাহ বলেন, ‘ককটেল বিস্ফোরণের ঘটনায় মোট নয়জনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বিস্ফোরক আইনে একটি মামলা দায়ের করা হয়েছে।’

এ ছাড়া রাতে রাজধানীর পান্থপথের বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্স এলাকার মশাল মিছিল থেকে ছাত্রদলের দুই নেতাকর্মীকে আটক করে কলাবাগান থানা পুলিশ।

কলাবাগান থানার ওসি পরিতোষ চন্দ্র আজ দুপুরে এনটিভি অনলাইনকে বলেন, পুলিশের ওপর হামলা ও কাজে বাধাদানের অভিযোগ এনে একটি মামলা হয়েছে। সেই মামলায় দুজনকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

এ ব্যাপারে গতকাল রাতে ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) রমনা বিভাগের উপকমিশনার (ডিসি) সাজ্জাদুর রহমান এনটিভি অনলাইনের কাছে দাবি করেছিলেন, ‘বসুন্ধরার উল্টা দিকে সন্ধ্যার পর একটি মশাল মিছিল যাচ্ছিল। সে সময় পুলিশ তাদের ছত্রভঙ্গ করে দেওয়ার চেষ্টা করলে তারা পুলিশের ওপর হামলা ও নাশকতা করার চেষ্টা করে। সে সময় পুলিশ দুজন নেতাকর্মীকে গ্রেপ্তার করে।’

পুলিশ জানিয়েছে, গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টা ৫ মিনিটে নয়াপল্টনে বিএনপি কেন্দ্রীয় কার্যালয়ের উত্তর পাশে কর অঞ্চল-১৫-এ পার্কিং করা সরকারি গাড়িতে অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটে।

এরপর গত বৃহস্পতিবার দুপুর ১টার দিকে মতিঝিলের মধুমিতা সিনেমা হলের সামনে অগ্রণী ব্যাংকের স্টাফ বাসে এবং ১টা ২৫ মিনিটে বঙ্গবন্ধু এভিনিউ এলাকায় রমনা ভবনের সামনে ভিক্টর ক্লাসিক পরিবহনের চলন্ত গাড়িতে অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটে।

এরপর দুপুর দেড়টার দিকে শাহবাগের আজিজ সুপার মার্কেটের সামনে দেওয়ান পরিবহনে, দুপুর ২টা ১০ মিনিটে সচিবালয়ের উত্তর পাশে রজনীগন্ধা পরিবহন এবং বংশাল থানাধীন নয়াবাজার এলাকায় ২টা ২৫ মিনিটে দিশারী পরিবহনের একটি বাসে আগুন দেওয়া হয়।

এ ছাড়া ২টা ৪৫ মিনিটে পল্টন থানাধীন পার্কলিং-এ জৈনপুরী পরিবহন, বিকেল ৩টায় মতিঝিল থানাধীন পুবালী পেট্রোল পাম্পের পাশে বিআরটিসির দোতলা বাসে, সাড়ে ৪টার দিকে ভাটারা থানাধীন কোকাকোলা মোড়ে ভিক্টর ক্লাসিক পরিবহনের একটি বাসে এবং উত্তরার আজমপুরের বিএনএস সেন্টারের বিপরীত দিকে বিকেল ৫টা ৫৫ মিনিটে পরিস্থান পরিবহনের একটি বাসে অগ্নিসংযোগ করা হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com