মঙ্গলবার, ২৭ অক্টোবর ২০২০, ০৮:৪০ অপরাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
বিশ্বজুড়ে করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ১১ লাখ সাড়ে ৬৪ হাজার ছাড়াল কাঁঠালবাগান বাজারের পাশের গলি খেকে তরুণের লাশ উদ্ধার আঞ্চলিক সাংবাদিকতার বাতিঘর  মালয়েশিয়া করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবে জরুরি অবস্থা ঘোষণার প্রস্তাব নাকচ করে দিয়েছেন রাজা কোভিড মহামারির দ্বিতীয় ঢেউয়ে সম্মুখীন হতে যাচ্ছে বিশ্ব যুক্তরাষ্ট্রের মাইক পম্পেও এবং মার্ক এসপার ২দিনের সফরে নতুন দিল্লিতে হিন্দু সম্প্রদায়ের ধর্মীয় উৎসব দুর্গা পূজা বিজয়া দশমীর মাধ্যমে শেষ হয়েছে সাভারে ছিনতাইকারীদের ছুরিকাঘাতে হত্যার ঘটনায় ২জন গ্রেপ্তার ৩০ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর ইরফানের ব্যক্তিগত সহকারী টাঙ্গাইলে গ্রেপ্তার কাউন্সিলর মোহাম্মদ ইরফান সেলিম বরখাস্ত হচ্ছেন

ঠাকুরগাঁও শুক নদীর তীরে বুড়ির বাঁধে মাছ ধরা উৎসব

  • আপডেট টাইম : শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০, ৮.২৭ পিএম
  • ১৮ বার পঠিত
মো:মনসুর আলী, রুহিয়া(ঠাকুরগাঁও): প্রতিবছরের মতো এবারো ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার চিলারং ও আকচা ইউনিয়নের শুক নদীর তীর বুড়ির বাঁধে চলছে মাছ ধরার উৎসব।
১৭ অক্টোবর শনিবার ভোরের দিকে বাঁধের গেট খুলে দেয়ায় এই এই উৎসবে যোগ দিয়েছেন আশে পাশের গ্রামের কয়েক হাজার মানুষ।
বুড়ির বাঁধ এলাকায় গিয়ে দেখা যায়, অসংখ্য মানুষ মাছ ধরতে ব্যস্ত। এদের মধ্যে নারী, পুরুষ ও শিশু রয়েছে। বাদ যাননি বৃদ্ধরাও। কারও হাতে পলো, কারও হাতে চাবিজাল, খেয়াজাল, টানাজাল বা ছেঁকাজাল।
যাদের মাছ ধরার সরঞ্জাম নেই তারাও বসে নেই। খালি হাত দিয়েই কাঁদার মধ্যে মাছ খুঁজছে। আর নদীর পাড়ে হাজারো মানুষ ভিড় জমিয়েছে মাছ ধরা দেখতে। অনেকে মাছ না ধরলেও বন্ধু-বান্ধব ও স্বজনদের উৎসাহ দিচ্ছেন।
জানা যায়, ১৯৮০ সালের দিকে শুষ্ক মৌসুমে এ অঞ্চলের কৃষি জমির সেচ সুবিধার জন্য সদর উপজেলার আচকা ও চিলারং ইউনিয়নের মাঝামাঝি এলাকায় শুক নদীর উপর একটি জলকপাট (সুইসগেইট) নির্মাণ করা হয়।
জলকপাটে আটকে থাকা সেই পানিতে প্রতিবছর মৎস্য অধিদফতরের উদ্যোগে বিভিন্ন জাতের মাছের পোনা ছাড়া হয়। আর শীতের শুরুতেই বাঁধের পানি ছেড়ে দেওয়ার পর মাছ ধরার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। এভাবেই প্রতিবছর চলে বুড়ির বাঁধে মাছ ধরার উৎসব।
ঠাকুরগাঁও জেলা মৎস্য অধিদপ্তরের সিনিয়র সহকারী পরিচালক আব্দুল আজিজ জানান,প্রতিবারই এই বুড়ির বাঁধ এলাকায় আমাদের উদ্যোগে পোনা ছাড়া হয়। এটি আমরা জুলাই মাসের দিকে দিয়ে থাকি এবং শীতের শুরুতেই আবার বাঁধের পানি ছেড়ে দেওয়ার পর মাছ ধরার জন্য উন্মুক্ত করে দেওয়া হয়। এভাবেই প্রতিবছর চলে বুড়ির বাঁধে মাছ ধরার উৎসব।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com