বৃহস্পতিবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:০৩ পূর্বাহ্ন
সংবাদ শিরোনাম ::
শ্রীলংকা সফর নিশ্চিত হলে যেকোন সমন্বয় করতে প্রস্তুত বিসিবি অনুমতি না পাওয়ায় পেঁয়াজবাহী বহু ট্রাক ফিরে গেছে জাতীয় সংসদ ভবনের উন্নয়ন কর্মকান্ডের প্রেজেন্টেশন প্রত্যক্ষ করলেন প্রধানমন্ত্রী রিজেন্টের সাহেদ ও স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কর্মকর্তার বিরুদ্ধে দুদকের মামলা প্রবাসী শ্রমিকদের আকামার মেয়াদ বাড়াতে সৌদি আরবের প্রতি বাংলাদেশের অনুরোধ বিশ্বব্যাপী করোনাভাইরাসে মৃতের সংখ্যা ৯ লাখ ৬৮ হাজার ৬০০ জন করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়ে দেশে আরও ৩৭ জনের মৃত্যু শীতকালে করোনার সেকেন্ড ওয়েভ শুরুর আশংকা উড়িয়ে দেয়া যাচ্ছে না :স্বাস্থ্যমন্ত্রী শীতকালে করোনার দ্বিতীয় ঢেউ আসতে পারে:তথ্যমন্ত্রী রামগতি আলেকজান্ডার সড়কের বেহাল অবস্থা! জনদুর্ভোগ চরমে

ডাকাতি দায়ে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর ৫জনের কারাদণ্ড

  • আপডেট টাইম : সোমবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০, ৫.০২ পিএম
  • ২০ বার পঠিত

আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর পোশাক পরে দিনদুপুরে ডাকাতির দায়ে পাঁচজনকে কারাদণ্ড দিয়েছেন ঢাকার একটি আদালত। রোববার ঢাকার বিশেষ জজ শহিদুল ইসলাম আসামিদের প্রত্যেককে ১০ বছর করে কারাদণ্ডের আদেশ দেন।

দণ্ডপ্রাপ্তরা হলেন—ল্যান্স করপোরাল মো. মনিরুল ইসলাম ওরফে রিপন, সৈনিক মো. লিটন হাওলাদার, সৈনিক মো. সাজ্জাদ হোসেন, সৈনিক মো. লুৎফর রহমান খান ও পুলিশের উপপরিদর্শক (এসআই) মো. মোসাদ্দেক হোসেন খান। ঘটনার সময় সবাই র‍্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)-১-এ কর্মরত ছিলেন। এর মধ্যে রিপন, সাজ্জাদ ও লুৎফর পলাতক। বাকি দুজন রায় ঘোষণার সময় আদালতে ছিলেন।

দুপুরে আদালতের সরকারি কৌঁসুলি মাহবুব আলম ভূঁইয়া বিষয়টি নিশ্চিত করে জানিয়েছেন, এ মামলার রায় ঘোষণার সময় আদালত একটি বিশেষ পর্যবেক্ষণ দিয়েছেন।

রায়ের পর্যবেক্ষণে আদালত বলেছেন, ‘আসামিগণ রক্ষক হইয়া ভক্ষকের ভূমিকায় অবতীর্ণ হইয়া ডাকাতির মতো ঘৃণ্য অপরাধ করায় তাহাদের বাহিনীর সুনামকে হুমকির মধ্যে ফেলেছেন। এ পরিস্থিতিতে আসামিদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি প্রদান আবশ্যক বলে মনে করি।

আইনজীবী আরো বলেন, ‘রায়ে আসামিদের প্রত্যেককে ১০ বছরের কারাদণ্ডের পাশাপাশি এক লাখ টাকা জরিমানা এবং তা অনাদায়ে অতিরিক্ত এক বছর কারাদণ্ড ভোগের নির্দেশ দিয়েছেন। এ ছাড়া এ মামলায় মো. আলম খান ও স্যামুয়েল বৈদ্য নামের দুজনকে বেকসুর খালাস দিয়েছেন আদালত। খালাসপ্রাপ্তরা পলাতক।’

২০১১ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি রাজধানীর গুলশানের জে কে সেলস অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির ব্যবস্থাপক মাঈন উদ্দিন বাদী হয়ে এই ডাকাতির মামলা দায়ের করেছিলেন।

মামলার অভিযোগে বলা হয়, ২০১১ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সকাল সাড়ে ১০টায় জে কে সেলস অ্যান্ড ডিস্ট্রিবিউশনের হিসাবরক্ষক মো. সেলিম, প্রকৌশলী  হানিফ, চালক নুরুল হক একটি কাভার্ডভ্যানে করে কোম্পানির ১৮ লাখ নয় হাজার ২০০ টাকা নিয়ে বনানীর সাউথইস্ট ব্যাংকে জমা দিতে যাচ্ছিলেন। বনানী ১৩ নম্বর রোডের মাথায় ‌‘লোটাস কামাল ভবন’-এর কাছে র‍্যাবের পোশাক পরিহিত একজন মোটরসাইকেলে এসে কাভার্ডভ্যানের গতিরোধ করেন। এ সময় র‍্যাব সদস্য বলেন, গাড়িতে অবৈধ জিনিস আছে, চেক করতে হবে।

পরে সেখানে র‍্যাবের পোশাক পরিহিত আরো ৪/৫ জন উপস্থিত হয়ে চালক নুরুলকে কাভার্ডভ্যানের দরজা খুলতে বলেন। চালক দরজা খুলে দিলে র‍্যাব সদস্যরা হিসাবরক্ষক মো. সেলিম ও প্রকৌশলী হানিফকে র‍্যাব-১-এর কার্যালয়ে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে মাইক্রোবাসে উঠিয়ে নিয়ে যায় বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।

এতে আরো অভিযোগ করা হয়, কিন্তু র‍্যাব কার্যালয়ে না নিয়ে ভাসানটেক থানার মাটিকাটা এলাকায় নিয়ে টাকার ব্যাগটি রেখে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

themesbazsongbadsara1
© All rights reserved  2019 songbadsarakkhon
Theme Download From ThemesBazar.Com